kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৫ জুন ২০১৯। ১১ আষাঢ় ১৪২৬। ২২ শাওয়াল ১৪৪০

শত বাধা পেরিয়ে

আয় করে পড়েছে ফারজানা

এস এম ওমর আলী সানি, আগৈলঝাড়া (বরিশাল)   

২২ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আয় করে পড়েছে ফারজানা

বরিশালের আগৈলঝাড়ার টেমার মালেকা খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়েছে ফারজানা আক্তার।

অভাব-অনটনের সংসারে প্রাইভেট পড়িয়ে নিজের পড়াশোনার খরচ জুগিয়েছে ফারজানা। ভবিষ্যতে শিক্ষক হতে চায় সে। কিন্তু তার স্বপ্নপূরণের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে অর্থাভাব।

ফারজানার পরিবারে মা-বাবা, ভাই আর দাদি আছে। দুই ভাইবোনের মধ্যে সে-ই বড়। মেয়ের স্কুলে নৈশপ্রহরী পদে চাকরি করেন ফারজানার বাবা। তাঁর একার আয়ে সংসার চলে না। এ অবস্থায় নিজের পড়াশোনার খরচ জোগাতে অন্যদের প্রাইভেট পড়িয়েছে ফারজানা। স্কুল থেকেও বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করা হয়েছে তাকে।

ফারজানার বাবা মো. ছালাম মিয়া জানান, নৈশপ্রহরীর চাকরি করে ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার খরচ চালানো খুবই কষ্টকর। মেয়ের সাফল্যে খুশি; কিন্তু কিভাবে ভালো কলেজে ভর্তি করবেন—এ দুশ্চিন্তা ভর করেছে তাঁর মনে।

ফারজানার মা মোসা. লিপি বেগম বলেন, ‘টানাটানির সংসারে মেয়েকে পরীক্ষার সময় ভালো জামাকাপড় কিনে দিতে পারিনি। পরীক্ষার সময় ভালো খাবারও খেতে দিতে পারিনি। এরপরও মেয়ের সাফল্যে আমরা গর্ববোধ করছি।’

টেমার মালেকা খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এ মান্নান বলেন, ‘আমি তাকে (ফারজানা) বিনা টাকায় কোচিং করিয়েছি। তার কাছ থেকে কোনো ধরনের পরীক্ষার ফি বা বেতন নেওয়া হয়নি।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা