kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

শত বাধা পেরিয়ে

দারিদ্র্য দমাতে পারেনি রণজিৎকে

নুরুল ইসলাম খান, কেশবপুর (যশোর)    

২১ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



দারিদ্র্য দমাতে পারেনি রণজিৎকে

এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়েছে যশোরের কেশবপুরের মধ্যকুল গ্রামের রাজবংশীপাড়ার রণজিৎ রায়। পাশের মণিরামপুরের নাগোরঘোপ বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষা দিয়েছিল সে। এর আগে পিইসি ও জেএসসিতেও জিপিএ ৫ পায় সে। কিন্তু রণজিতের পথচলা এত সহজ ছিল না।

চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন রণজিতের। কিন্তু কলেজে ভর্তি হওয়ার টাকা পাবে কোথায়—এ দুশ্চিন্তায় ঘুম নেই তার।

রণজিতের বাবা কার্ত্তিক রায় কেশবপুর বাজারে মাছ বিক্রি করেন। আর মা সুজাতা রায় গৃহিণী। টিনের ছাউনির ঘরে থাকে তারা। অভাব-অনটন রণজিতের নিত্যসঙ্গী হলেও কখনো পড়াশোনা ছাড়েনি সে। সব সময় বইয়ে ডুবে থাকত। স্কুলের বাইরে প্রতিদিন ছয় থেকে সাত ঘণ্টা পড়ত সে। খাওয়াদাওয়ার দিকেও খেয়াল থাকত না। ছেলেকে সব সময় উৎসাহ দিয়ে গেছেন কার্ত্তিক আর সুজাতা। তা ছাড়া ভালো ব্যবহারের কারণে শিক্ষকদের সুনজরে ছিল রণজিৎ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা