kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৮ জুন ২০১৯। ৪ আষাঢ় ১৪২৬। ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

ঈশ্বরগঞ্জে ধর্ষিত ছাত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা

বিভিন্ন স্থানে শিশুসহ আরো চার ধর্ষণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



কথিত প্রেমিকের মোবাইল ফোনে প্রেমিকার (স্কুলছাত্রী) গোপন কিছু একটা আছে। প্রস্তাবে প্রেমিকা রাজি না হলে সেটি সবার কাছে প্রকাশ করে দেওয়াসহ বিভিন্ন ভয় দেখায় কথিত প্রেমিক। এতে ভয় পেয়ে প্রেমিকা যায় প্রেমিকের কাছে। এরপর তাকে ধরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে ও হত্যার চেষ্টা চালায় প্রেমিক। সেখান থেকে পালিয়ে এসে এক বান্ধবীর বাড়িতে এসে চিরকুট লিখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় মেয়েটি। নির্যাতিত হওয়ার পর এই বর্ণনা পাওয়া গেছে মেয়েটির লেখায়। ঘটনাটি ঘটে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের চরআলগী গ্রামের চরাঞ্চলে গত শুক্রবার রাতে ও শনিবার।

এ ছাড়া নরসিংদীর শিবপুর ও লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে শিশু, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ধর্ষিত হওয়ার পর আত্মহত্যার চেষ্টা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ জানান, ঈশ্বরগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টায় অভিযুক্ত কলেজছাত্র ইয়াসীন মিয়াকে (২২) শনিবার রাতে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। ইয়াসীন উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের মরিচার চর মলামারী গ্রামের মো. বাবুল মিয়ার ছেলে।

গত রবিবার দুপুরে উচাখিলা ইউনিয়নে গিয়ে জানা যায়, শনিবার দুপুরে স্বজনরা নির্যাতিত মেয়েটিকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে ভর্তি করে। গলায় ফাঁস লাগানোর কারণে মেয়েটির কণ্ঠনালি ও জিহ্বা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সে এখন কথা বলতে পারছে না। তবে কাগজে লিখে স্বজনদের কাছে ঘটনার পূর্বাপর বর্ণনা দিয়েছে। পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে মেয়েটির কাছ থেকে তার ওপর নির্যাতনের লিখিত বর্ণনা নিয়েছে। ইয়াসীনের মা সেলিনা খাতুন বলেন, শত্রুতা করে তাঁর ছেলেকে এ ঘটনায় ফাঁসানো হতে পারে। ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আহমেদ কবীর বলেন, ছাত্রীর বাবা থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। মামলা প্রক্রিয়াধীন।

শিবপুরে শিশু ধর্ষণ

নরসিংদী প্রতিনিধি জানান, শিবপুর উপজেলার বাঘাব ইউনিয়নের সফরিয়া এলাকার মুদি ব্যবসায়ী রায়হান মিয়ার (২২) বিরুদ্ধে এক শিশুকে (৪) চকোলেট খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার সন্ধ্যায় সফরিয়ায় অভিযুক্তের বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে। রবিবার সকালে শিশুটিকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষা ও চিকিত্সার জন্য ভর্তি করে পুলিশ। পুলিশ ও শিশুটির পরিবার জানায়, সফরিয়ার আবদুর রাজ্জাক মিয়ার ছেলে রায়হান শিবপুর বাজারে বাবার সঙ্গে মুদি দোকানের ব্যবসা দেখাশোনা করে।

সদর হাসাপাতালের আরএমও ডা. মো. আমিরুল হক শামীম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গাইনি চিকিত্সক দিয়ে শিশুটির বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়েছে। মামলার পর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। আর এ ঘটনায় একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হচ্ছে।’

শিবপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মুমিনুল হক বলেন, এ ঘটনায় শিশুটির মা অভিযোগ করেছেন। অভিযুক্ত রায়হানকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

রামগতিতে শিশু ধর্ষণ, যুবক আটক

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি জানান, রামগতিতে ১৮ এপ্রিল এক শিশুকে ধর্ষণ অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার শিক্ষাগ্রামের অভিযুক্ত মোহনকে (২৬) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বিকেলে শিশুটির বাবা রামগতি থানায় ধর্ষণ মামলা করেছেন। রামগতি থানার ওসি এ কে এম আরিচুল হক বলেন, অভিযুক্তকে জেলা আদালতে পাঠানো হবে।

কোম্পানীগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ১

নোয়াখালী প্রতিনিধি জানান, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় বিয়ের প্রলোভনে এক কিশোরীকে (১৬) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রবিবার রাতে অভিযুক্ত উপজেলার চরকাঁকড়া ইউনিয়নের বাত ওয়ালা টেন্ডল বাড়ির মো. নুর উদ্দিন হূদয়কে (১৮) এলাকাবাসী আটক করে পুলিশে দিয়েছে।

সখীপুরে রহস্য উন্মোচন, ধর্ষণের পর হত্যা

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি জানান, সখীপুরে গত বছরের ৫ অক্টোবর খুন হন বিধবা নাজমা ওরফে ধলাবানু (৪২)। হত্যাকাণ্ডের সাড়ে ছয় মাস পর রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। নাজমার কাছ থেকে লুটে নেওয়া মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে শনিবার রাতে উপজেলার মুচারিয়া পাথার গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে আলমগীর হোসেনকে (২২) গ্রেপ্তার করে পুলিশ। রবিবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত সখীপুরে আলমগীর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সখীপুর থানার এসআই শামসুল হক বলেন, পৌর এলাকা প্রতিমা বংকী বেতুয়াপাড়ার বাসায় নাজমা একাই থাকতেন। এ সুযোগে খুনিরা সাতজন মিলে তাঁকে ধর্ষণ করে। চিত্কার করায় তাঁর গলায় গামছা ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। ধর্ষণের পর তাঁকে শ্বাসরোধে খুন করে হাত, পা ও মুখ বেঁধে বাথরুমে রেখে পালিয়ে যায়। খুনিরা তাঁর মোবাইল ফোন ও স্বর্ণাংলকারও নিয়ে যায়। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা