kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ মে ২০১৯। ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৭ রমজান ১৪৪০

স্কুলের খোয়া যাওয়া ১৮ ল্যাপটপ রেখে গেল চোর

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্কুলের খোয়া যাওয়া ১৮ ল্যাপটপ রেখে গেল চোর

বরগুনার পাথরঘাটার কে এম সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে সম্প্রতি ২০টি ল্যাপটপ চুরি যাওয়ার পর গত রবিবার বিদ্যালয়টির বারান্দায় পরিত্যক্ত অবস্থায় ১৮টি ল্যাপটপ পাওয়া যায়। এর আগে গত ৯ মার্চ ল্যাপটপগুলো চুরি হলে বিদ্যালয়ের দুজন শিক্ষকসহ চারজন ১০ দিনের মধ্যে ল্যাপটপগুলো ফিরিয়ে দেওয়ার শর্তে মুচলেকা দিয়ে থানা থেকে ছাড়া পায়।

পাথরঘাটা থানার ওসি মো. হানিফ সিকদার স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, গত রবিবার সকালে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী মো. সগির হোসেন স্কুলে এসে বারান্দার পূর্বদিকে দুটি কার্টন দেখে স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরুল আলমকে জানান। প্রধান শিক্ষক বিষয়টি থানায় জানালে পুলিশ এসে কার্টন খুলে ১৮টি ল্যাপটপ উদ্ধার করে।

এর আগে গত ৯ মার্চ বিদ্যালয়ের আইসিটি ল্যাব থেকে ২০টি ল্যাপটপ চুরি হয়। স্কুল কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে পাথরঘাটা থানায় চুরির মামলা করা হয়।

পরে পুলিশ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক বীরেন্দ্র নাথ বেপারী, সহকারী শিক্ষক মুরাদুল হক, দপ্তরি ইউসুফ আলী হাওলাদার ও ফজলুল হক সগিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়। পরে ১০ দিনের মধ্যে চুরি যাওয়া ল্যাপটপ ফেরত দেওয়ার শর্তে মুচলেকা দিয়ে তাঁরা ছাড়া পান। এগুলো চুরি যাওয়া ল্যাপটপ কি না—তা যাচাই করে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এদিকে বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক বীরেন্দ্র নাথ বেপারীর সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবদুর রহিম জানান, ল্যাপটপগুলো কে বা কারা রেখে গেছে, তা এখনো স্পষ্ট নয়।

তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জাবির হোসেন, বাকি দুটি ল্যাপটপও পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মন্তব্য