kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

ঈশ্বরগঞ্জ নান্দাইলে তিন ছাত্রীকে যৌন পীড়ন

একটিতে ধর্ষক ধরা দুটি সালিসে রফা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ ও নান্দাইলের আলাদা স্থানে তিন স্কুলছাত্রী যৌন পীড়নের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব ঘটনার দুটি সালিসে রফা ও অন্যটিতে যৌন নিপীড়ককে জনতা আটক করে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশে দিয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, নান্দাইল উপজেলার রাজগাতি ইউনিয়নের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী ছুটির পর বাড়ি ফিরছিল। এ সময় পথরোধ করে তাকে ধরে নিয়ে যায় পাশের কালিগঞ্জ বাজারের কাটাখালী এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে রাজমিস্ত্রির সহকারী রিপন মিয়া (২২)। পরে পাশের একটি ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে গেলে ওই ছাত্রীর চিত্কারে লোকজন ছুটে গিয়ে নির্যাতনকারী রিপনকে আটক করে। পরে স্কুলছাত্রী জানায়, তাকে রিপন ধর্ষণ করেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। সেখান থেকে জনতার হাতে আটক রিপনকে থানায় নিয়ে আসে।

অন্যদিকে মুশল্লী ইউনিয়নের একটি বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করত ট্রলি চালক জুয়েল ও তার দলবল। এ ঘটনায় স্কুলছাত্রী বেশ কয়েকবার বিদ্যালয়ে বিচার চাইলেও কোনো সুরাহা পায়নি। এ অবস্থায় গতকাল সকালে বিদ্যালয়ে যাওয়ার সময় জুয়েল ওই স্কুলছাত্রীকে তার ট্রলিতে ওঠানোর চেষ্টা করে। তার আর্তচিত্কারে লোকজন ছুটে এলে জুয়েল সটকে পড়ে। এ ঘটনা নিয়ে বিকেলে স্কুল চত্বরেই এক সালিসের আয়োজন করে ঘটনাটি রফা করে দেন বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা।

অন্যদিকে গতকাল দুপুরে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মাইজবাগ এলাকার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী বিদ্যালয় থেকে বাড়ি যাওয়ার সময় স্থানীয় মাইজবাগ বাজারের একটি ঘরে ডেকে নিয়ে যায় ভাষা গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে গোলাপ মিয়া (২৫)। পরে ছাত্রীর মুখ চেপে ধরে নির্যাতনের চেষ্টার সময় লোকজনের হস্তক্ষেপে স্কুলছাত্রী রক্ষা পায়। কিন্তু গোলাপ পালিয়ে যায়। পরে ওই দিন বিকেলে স্থানীয় বাজারে এক সালিসে ঘটনাটি রফা করে দেয় সালিসকারীরা।

এ বিষয়ে নান্দাইল থানার ওসি কামরুল ইসলাম মিয়া ও ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আহম্মেদ কবির জানান, তাঁদের কাছে ঘটনা নিয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। তাঁরা বলেন, এসব সালিসে ফয়সালা করা দণ্ডনীয় অপরাধ। বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হবে।

মন্তব্য