kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ মে ২০১৯। ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৭ রমজান ১৪৪০

গৌরনদী

প্রভাবশালীদের বাধায় ১০ বছরেও ‘আলো’ দেখেনি পাঁচ পরিবার

গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি   

১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সরকার যেখানে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সেখানে এখনো সংযোগ পায়নি গৌরনদী পৌরসভার উত্তর পালরদী এলাকার পাঁচটি দিনমজুর পরিবার। ১০ বছর আগে এলাকার অন্যরা পেলেও তাদের ভাগ্যে জোটেনি বিদ্যুৎ। এলাকার প্রভাবশালী তিনটি পরিবারের আপত্তিতে তারা সংযোগ পাচ্ছে না বলে অভিযোগ।

ভুক্তভোগী ছালাম বিশ্বাস, বাবুল বিশ্বাসের (মৃত) স্ত্রী পাখি বেগম, চান্দু সিকদার, আকছু শরীফ ও হালান শরীফ অভিযোগ করেন, চার বছর আগে তাঁদের ঘরে ওয়ারিং করা হয়েছে। মিটার লাগানো হয়েছে আট মাস আগে; কিন্তু এখনো সংযোগ পাননি। অথচ ১০ বছর আগেই এলাকার অন্যরা বিদ্যুৎ পেয়েছে। সংযোগের জন্য এ পর্যন্ত ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে তাদের। প্রভাবশালী ছালাম মিয়া, রুস্তম মিয়া ও রহিম বিশ্বাসের পরিবারের বাধার কারণে তারা সংযোগ পাচ্ছে না। এ পরিবার তিনটি মূলত নিজেদের বাড়ির ওপর দিয়ে বিদ্যুতের লাইন টানতে দিচ্ছে না।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছালাম, রুস্তম ও রহিম বলেন, ‘আমরা বাধা দিইনি। আমরা চাচ্ছি যাতে কারো ক্ষতি না হয় সেভাবে বিদ্যুত্লাইন দেওয়া হোক।’

গৌরনদী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লিটন বেপারি বলেন, ‘আমি এ ব্যাপারে অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু ছালাম মিয়া, রুস্তম মিয়া ও রহিম বিশ্বাস—এ তিন পরিবারের খামখেয়ালিপনার জন্য তারা (পাঁচটি পরিবার) বিদ্যুৎ সংযোগ পাচ্ছে না। পৌরসভার ভেতর এ পরিবারগুলো বিদ্যুত্বঞ্চিত—এটা দুঃখজনক।’

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২-এর গৌরনদী আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) জাহিদা খানম বলেন, ‘আমি গৌরনদীতে নতুন যোগ দিয়েছি। লিখিত অভিযোগ পাইনি। এরপরও খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’ তিনি আরো বলেন, ‘কেউ অবৈধভাবে টাকা আদান-প্রদান করলে তদন্ত সাপেক্ষে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য