kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

আরএমবির অনুমোদন ছাড়াই তিন নার্সিং কলেজে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি!

অতিরিক্ত ৪০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির অভিযোগ

রফিকুল ইসলাম, রাজশাহী   

১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাজশাহী মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (আরএমবি) থেকে অনুমোদন না নিয়ে তিনটি নার্সিং কলেজে অতিরিক্ত ৪০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির অভিযোগ উঠেছে। ফলে ভর্তি হওয়া এই শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। জানা গেছে, বিপুল অঙ্কের টাকার বিনিময়ে এই শিক্ষার্থীদের ভর্তি করা হয়েছে। অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তির পর আরএমবির কাছে রেজিস্ট্রেশনের জন্য অনুমোদন চাওয়া হয়। কিন্তু বাদ সাধে আরএমবি কর্তৃপক্ষ। তিন নার্সিং কলেজকে তারা আবারও মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন নিতে চিঠি দিয়েছে।

অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে আসন বৃদ্ধি, আসনসংখ্যা অনুমোদন ও অধিভুক্তের নবায়নের জন্য অনুমতি নিতে হয় রাজশাহী মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে। সে ক্ষেত্রে অনুমোদিত সংখ্যার বাইরে কোনো প্রতিষ্ঠান ইচ্ছাকৃতভাবে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে পারে না। কিন্তু এই নিয়ম লঙ্ঘন করে রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক নার্সিং কলেজ অতিরিক্ত ১০ জন, বগুড়া টিএমএসএস নার্সিং কলেজ অতিরিক্ত ১৫ জন এবং রংপুর কমিউনিটি নার্সিং কলেজ অতিরিক্ত ১৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করে।

রংপুর কমিউনিটি নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষ গত বছরের ২৭ জুন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বেসিক কোর্সে ৪০ জনের স্থলে অতিরিক্ত ১০ জন এবং পোস্ট বেসিক কোর্সে ৩৫ জনের স্থলে অতিরিক্ত পাঁচজন ভর্তির অনুমোদন নেয়। নিয়ম অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটিকে প্রথমে আরএমবি থেকে ভর্তির অনুমোদন নেওয়ার কথা। আরএমবি কর্তৃপক্ষ যৌক্তিক মনে করলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমোদন দেবে। এরপর সেই অনুমোদন মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন করে নিতে হয়। কিন্তু এই নিয়ম লঙ্ঘন করে রংপুর কমিউনিটি নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষ আগেই মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন নিয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করে। এরপর গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর আরএমবিতে অনুমোদনের জন্য চিঠি দেয়।

রংপুর কমিউনিটি নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ খাদিজা বেগম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভুল হয়েছে, এভাবে শিক্ষার্থী ভর্তি করা ঠিক হয়নি। তবে পরে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমোদন চেয়ে চিঠি দিয়েছি। আরএমবির রেজিস্ট্রার এসে কলেজ পরিদর্শন করে গেছেন। পরে আর এমন কখনো হবে না।’

একই অবস্থা বগুড়া টিএমএসএস নার্সিং কলেজের ক্ষেত্রেও হয়েছে। তারাও গত বছর ২৪ অক্টোবর মন্ত্রণালয় থেকে আগে অনুমোদন নিয়ে অতিরিক্ত ১৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করে। পরে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি আরএমবি কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমোদনের জন্য চিঠি দেয়। জানতে চাইলে কলেজটির অধ্যক্ষ রেবেকা সুলতানা অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তির কথা স্বীকার করলেও কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষও একই প্রক্রিয়ায় অতিরিক্ত ১০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করে পরে রেজিস্ট্রেশনের জন্য অনুমোদন চেয়ে চিঠি দিয়েছে আরএমবি কর্তৃপক্ষকে। কলেজটির অধ্যক্ষ ডা. মেজর ডালিম বেগম বলেন, ‘আমরা অনুমোদনের বাইরে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি করিনি।’

জানতে চাইলে রাজশাহী মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক হুরাইরা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তিনটি নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম লঙ্ঘন করে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করেছে। এ নিয়ে তাদের আবারও চিঠি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি শেষ পর্যন্ত কোন পর্যায়ে ঠেকবে বলা মুশকিল।’

মন্তব্য