kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রসূতির মৃত্যু ভুল চিকিৎসায়

ক্লিনিকে স্বজনদের তালা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঠাকুরগাঁওয়ে ভুল চিকিৎসায় পারুল বেগম (৩০) নামের এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার রাতে সদর উপজেলা পৌর শহরের ঠাকুরগাঁও জেনারেল হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামের এক বেসরকারি ক্লিনিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত পারুল বেগম সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর গ্রামের ফাহমিদুল হাসান রাজিবের স্ত্রী। এ খবর জানাজানি হলে তাঁর স্বজনরা ক্লিনিকে তালা ঝুলিয়ে দেয়। এ সময় ওই হাসপাতালের চিকিৎসক ও তাঁর সহযোগীরা পালিয়ে যায়।

নিহত পারুলের স্বামী ফাহমিদুল হাসান রাজিব জানান, সোমবার সকালে সন্তান প্রসবের ব্যথা অনুভূত হলে তাঁর স্ত্রীকে শহরের ক্ল্যাসিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে আসেন। সেখানে চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম তাঁর স্ত্রীকে দেখে দ্রুত সিজার করতে হবে বলে জানান। তখন তাঁর পরামর্শে পাশের ঠাকুরগাঁও জেনারেল হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পারুলকে ভর্তি করা হয়। সকাল ৯টার দিকে সিজারে পারুলের পুত্রসন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু তিন ঘণ্টা পরও জ্ঞান না ফিরলে স্বজনরা পারুলকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসক পারুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. সুব্রত কুমার সেন জানান, হাসপাতালে আনার প্রায় দুই ঘণ্টা আগেই পারুলের মৃত্যু হয়েছে।

এ খবর শুনে পারুল ও তাঁর স্বজনরা জনতা ক্লিনিকে গিয়ে চিকিৎসক জাহাঙ্গীরকে না পেয়ে ক্লিনিক ভাঙচুরের চেষ্টা চালায় এবং একপর্যায়ে ক্লিনিকে তালা ঝুলিয়ে দেয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

মন্তব্য