kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

'বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সাজে কর্মচারী'

শ্রীপুরে ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগেই শিশুর মৃত্যু

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, গাজীপুর   

২৪ এপ্রিল, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গাজীপুরের শ্রীপুরে বেসরকারি একটি হাসপাতালে কর্মচারীরা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সেজে প্রসূতির অস্ত্রোপচারের চেষ্টাকালে ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগেই শিশুর মৃত্যু ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রসূতি ফারজানা আক্তারের (২৬) অবস্থাও আশঙ্কাজনক। গত বুধবার রাতে উপজেলার মাওনা আলহেরা হাসপাতালে ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পর গতকাল বৃহস্পতিবার দিনভর শিশুর মরদেহ নিয়ে ওই হাসপাতালে বিক্ষোভ করে স্বজনরা। ফারজানা মাওনা মধ্যপাড়া এলাকার তোফাজ্জল হোসেনের স্ত্রী।

প্রসূতির স্বজনরা জানায়, সাড়ে ৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ফারজানার প্রসবব্যথা উঠলে তোফাজ্জল হোসেন বুধবার সন্ধ্যায় তাঁকে পাশের মাওনা আলহেরা হাসপাতালে নিয়ে যান। তোফাজ্জল জানান, হাসপাতালের দুই কর্মচারী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সেজে 'রোগীর অবস্থা ভালো নয়' দাবি করে অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন। তাঁরা রক্তের বিভিন্ন পরীক্ষার পর ফারজানাকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে যান। এ সময় ফারজানার পিঠে ইনজেকশন পুশ করে অস্ত্রোপচারেরও চেষ্টা চালান তাঁরা। কিন্তু অবস্থার অবনতি ঘটলে মুমূর্ষু অবস্থায় ওই কর্মচারীরা ফারজানাকে উত্তরা বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন। তোফাজ্জল হোসেন জানান, উত্তরা বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকরা বিভিন্ন পরীক্ষার পর অপচিকিৎসায় ফারজানার গর্ভের শিশু মারা গেছে বলে জানান। পরে অস্ত্রোপচারে মৃত ছেলেশিশু প্রসব করেন ফারজানা। তোফাজ্জল অভিযোগ করেন, 'প্রতারকরা বিশেষজ্ঞ ডাক্তার সেজে আমার স্ত্রীর গর্ভের নিষ্পাপ শিশুকে হত্যা করেছে। আমার স্ত্রীর অবস্থাও আশঙ্কাজনক। উত্তরা বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউতে মুমূর্ষু অবস্থায় তাঁর চিকিৎসা চলছে।' প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল সকাল থেকে নিহত নবজাতকের মরদেহ নিয়ে স্বজনরা মাওনা আলহেরা হাসপাতালে বিক্ষোভ করে। অপচিকিৎসার অভিযোগ অস্বীকার করে মাওনা আলহেরা হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. আবুল হোসাইন বলেন, 'প্রসূতিকে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক উত্তরা বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেছেন। এখানে কোনো অস্ত্রোপচারের চেষ্টা করা হয়নি।' শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা শেখ হাসান ইমাম বলেন, অপচিকিৎসার অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।' শ্রীপুর থানার ওসি জানান, গতকাল বিকেলে অপচিকিৎসার শিকার ফারজানা আক্তারের স্বজনদের সঙ্গে আলহেরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সমঝোতা হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ফারজানার চিকিৎসার ব্যয় বহন করবে।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা