kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

নিজের সুবিধা পেতে যত্ন নিতে হবে অন্যদেরও

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৮:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নিজের সুবিধা পেতে যত্ন নিতে হবে অন্যদেরও

স্বাস্থ্যকর জীবনধারার জন্য নিজের পাশাপাশি পছন্দের মানুষদের প্রতিও যত্ন নিতে হবে। এক সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, নিজের পাশাপাশি যতক্ষণ প্রিয়জনদের যত্ন না নেবেন ততক্ষণ পর্যন্ত  স্বতঃস্ফূর্তভাবে আপনি মানসিক ও শারীরিক সুবিধা পাবেন না।

গবেষকরা দেখেছেন, নিজের প্রতি ভালোবাসা থেকে ব্যায়ামে অংশ নিলে হার্টরেট শান্ত হয়, শরীরের ঝুঁকির প্রতিক্রিয়া বন্ধ হয়। এর আগে পূর্ববর্তী গবেষণা দেখানো হয়, এই হুমকি প্রতিক্রিয়া রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। গবেষকরা মনে করেন যে এই প্রতিক্রিয়া বন্ধ করার ক্ষমতা রোগের ঝুঁকি কমিয়ে দিতে পারে।

কিন্তু সাম্প্রতিক গবেষণায়, ১৩৫ স্বাস্থ্যকর শিক্ষার্থীকে পাঁচটি দলে ভাগ করা হয়। প্রত্যেক দলের সদস্যদের অডিও নির্দেশনার একটি ভিন্ন সেট শোনে। দলটি হার্টরেট ও ঘামের প্রতিক্রিয়ার শারীরিক পরিমাপ গ্রহণ করে এবং অংশগ্রহণকারীদের বলা হয় তাদের কাছে কেমন অনুভূত হচ্ছে তা জানাতে। প্রশ্নগুলোর ভেতর ছিল তারা কতটা নিরাপদ বোধ করছে, অন্যদের প্রতি তারা কেমন সহানুভূতিশীল এবং অন্যদের প্রতি প্রত্যেকের সম্পর্কের ক্ষেত্রে কেমন বোধ হচ্ছে।

দুটি দল যাদের নির্দেশাবলী তাদের প্রতি সদয় হতে উৎসাহিত করেছিল কেবল তাদের আত্ম-করুণা এবং অন্যদের সঙ্গে সংযোগ অনুভব করার জন্য নয়, বরং তাদের শারীরিক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছিল যে তারা শিথিলতা ও নিরাপত্তার অনুভূতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তাদের হৃদস্পন্দনের হার হ্রাস পেয়েছে এবং হার্টবিটগুলোর মধ্যে সময়সীমার পার্থক্য - হার্টের সুস্থতার লক্ষণ যা পরিস্থিতির সঙ্গে সুদৃঢ় প্রতিক্রিয়া জানাতে পারে।

গবেষণার ফল জার্নাল অব ক্লিনিকাল সাইকোলজিক্যাল সায়েন্স-এ প্রকাশিত হয়।

গবেষকদের মতে, নিজের এবং অন্যের প্রতি যত্ন নেওয়ার ঘটনায় বিষণ্নতা প্রবণতা দূর করে।  নেতিবাচক চিন্তাভাবনা এবং আত্ম সমবেদনা বাদ দিয়ে একটি সামষ্টিক সমবেদনা তৈরি হয়। এতে অন্যের মতো নিজেরও শারীরিক ও মনস্তাত্বিক সুবিধাগুলোর আকাঙ্খা পূরণ হয়। 

সূত্র : চিটশিট 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা