kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

স্টকহোমে বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত

সাব্বির খান, সুইডেন থেকে   

২৫ মার্চ, ২০২১ ২৩:৪৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্টকহোমে বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত

যথাযথ ভাবগম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাস, স্টকহোমে  গণহত্যা দিবস-২০২১ পালিত হয়েছে। ২৫ মার্চ বিকালে অনলাইনে জুম প্লাটফর্মে এ দিবসটিকে কেন্দ্র করে এক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সুইডেন, নরওয়ে এবং ফিনল্যান্ডে অবস্থানরত বাংলাদেশী কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ অনলাইনে এবং দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ দূতাবাস প্রাঙ্গন থেকে যোগদান করেন। 

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ শেষে দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ও অনলাইনে অংশগ্রহণকারী অতিথিদের সমবেত শুদ্ধস্বরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে শহীদদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বানী পাঠ করেন দূতাবাস কর্মকর্তাগণ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী শহীদদের, বিশেষ করে এই দিনটিতে যারা শহীদ হয়েছিলেন তাঁদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এ মোনাজাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি এবং বাংলাদেশের মানুষের সার্বিক কল্যান কামনা করা হয়।

দূতাবাসের প্রথম সচিব আমরিন জাহানের সঞ্চালনায় অনলাইনে উপস্থিত সুইডেন, নরওয়ে এবং ফিনল্যান্ডে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে গণহ্ত্যা দিবসের ওপর আলোকপাত করে উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ইতিহাসের জঘন্যতম গণহত্যার স্মৃতিবিজড়িত রাত ভয়াল ২৫ মার্চ। এই রাতের বীভৎসতা এতটাই নির্মম যে হত্যা, ধর্ষণ, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, ধ্বংসযজ্ঞের অতীত সব রেকর্ডকে ছাপিয়ে এটি হয়ে উঠেছে বিশ্বের ভয়ালতম গণহত্যার রাত। ‘অপারেশন সার্চলাইটের’ নামে পাকিস্তানী বাহিনীর অতর্কিত সেই হামলায়  মূল লক্ষ্য ছিল, হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞের ভিতর দিয়ে বাঙালি জাতীয়তাবাদ আন্দোলনকে সমূলে ধ্বংস করা এবং পূর্ব বাংলার বাঙালি জনগোষ্ঠীকে দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ করা। কিন্তু বাঙালি এই নৃশংসতার বিরুদ্ধে ঠিকই মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিলো এবং দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে অর্জন করে  নিয়েছিলো বহু আকাঙ্খিত স্বাধীনতা।

রাষ্ট্রদূত মো. নাজমুল ইসলাম তাঁর বক্তব্যের সূচনায় স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের লাখো শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি বলেন গণহত্যার কোন জাতি ধর্ম বর্ণ হয় না, এটি হল সমগ্র মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ। পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী যে ভয়াল হত্যাকান্ড চালিয়েছে তার বিচার প্রক্রিয়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য সবাইকে কাজ করার আহবান জানান তিনি। একইসাথে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রদানে সরকারের ভূমিকা উল্লেখ করে সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে অনুরোধ জানান তিনি।



সাতদিনের সেরা