kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

বাংলাদেশ হিন্দু এসোসিয়েশন ইউকের শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন

নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান

জুয়েল রাজ, লন্ডন থেকে   

৩ মার্চ, ২০২১ ১৫:৫৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান

বাংলাদেশ হিন্দু এসোসিয়েশন (ইউকে)-এর উদ্যোগে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২১ উদযাপন উপলক্ষ্যে গত ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, রোববার সন্ধ্যা ৭টায় এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে অংশ নিয়ে নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম।

এক মিনিট নীরবতা পালন ও ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো....’ মহান একুশে গানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। একুশের ঐতিহাসিক প্রামান্য চিত্র উপস্হাপন করে বি, এইচ, এ, যুব ফোরামের সদস্য অমিত দেব।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সভাপতি প্রশান্ত পুরকায়স্থ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম, বিশেষ অতিথি ছিলেন নিউহ্যামের স্টিফেন টিমস্ এম, পি ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম বলেন আসুন আমরা মাতৃভাষা দিবস ও নববর্ষ উদযাপনের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্টিফেন টিমস্ এম, পি, আশা প্রকাশ করেন যে বাঙালি ছেলে মেয়েরা ইংরেজী লেখাপড়ায় ভাল ফল করার সাথে সাথে বাংলা ভাষায়ও যেনো দক্ষতা অর্জন করে।

প্রধান আলোচক লীডসের পূরবী বাঙালি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল কুদ্দুছ ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় একুশে ফেব্রুয়ারির ভূমিকা ব্যাখ্যা করেন।তিনি ড: মুহাম্মদ শহীদুল্লার উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন বাংলার হিন্দু অথবা বাংলার মুসলিম যেমন সত্য তেমনি সত্য আমরা সবাই বাঙালি।

আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বিশেষ অতিথিবৃন্দ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালুমনাই ইউকের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দেওয়ান গৌস সুলতান, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আব্দুর রাকীব, সাংস্কৃতিক কর্মী ও কবি টি ,এম, আহমেদ কায়সার ও বি, এইচ, এ, ইউকের সদস্যবৃন্দ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের বিশেষ পরিবেশনা ছিল সংস্কৃত, বাংলা, ইংলিশ, ফ্রান্স, ইটালীর ভাষায় বহুভাষিক গান ও একুশের চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা।

ছোট মনিদের গান ও কবিতা আবৃত্তিতে অংশগ্রহণ করে কৃষ্ণ শীল, অর্পিতা ঘোষ, স্বয়ম দাম, প্রিয়ম পুরকায়স্থ, স্মিতা দে, পালমীরা তারণ, অনন্যা পোদ্দার, শুভাঙ্গী দাম, রীতি দাম, রাজন্যা দে, বিরজা দে, অভিরূপ দত্ত বণিক, রেশী দেব, অর্ক ঘোষ ও অনীক ঘোষ।

এসোসিয়েশনের সদস্যদের মধ্যে সংগীত পরিবেশন করেন বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী হিমাংশু গোস্বামী, অমলেন্দু শেখর পোদ্দার, শম্পা সেন, মুন্নী চক্রবর্তী, স্বরলিপি দত্ত ও অনুসূয়া পাল এবং অতিথি শিল্পী রীপা রাকীব । কবিতা আবৃত্তি করেন শাহীন মিতুল, ড: কানিজ ফাতেমা চৌধুরী, দীপালী সেন ও বীথি দাশ। সার্বিক পরিকল্পনা ও অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন, সাধারণ সম্পাদক সুজিত চৌধুরী ও সহ সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা মহামায়া শীল। এসোসিয়েশনের সহ- সভাপতি রবীন পালের ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও স্বরলিপি দত্তের কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি টানা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা