kalerkantho

বুধবার । ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৫ নভেম্বর ২০২০। ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বাংলাদেশি ডাকাত কলকাতায় ধূপকাঠি বিক্রেতা...পত্রিকায় ছবি দেখে গ্রেপ্তার

কলকাতা প্রতিনিধি   

২২ জুলাই, ২০২০ ১৬:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশি ডাকাত কলকাতায় ধূপকাঠি বিক্রেতা...পত্রিকায় ছবি দেখে গ্রেপ্তার

ভারত-বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী সাতক্ষীরা জেলা থেকে পালিয়ে আসা এক অপরাধীকে গ্রেপ্তার করেছে পশ্চিমবঙ্গের সোনারপুর থানা পুলিশ। আটক অপরাধীর নাম আশরাফ সরদার ওরফে জিয়া গাজী। সোমবার রাতে সোনারপুরের কারবালা এলাকার একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে পুলিশ।

বারুইপুর জেলা পুলিশ কর্মকর্তা দাবি করেন, ২০১৩ সালে বাংলাদেশে ডাকাতির অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছিল আশরাফ। ২০১৭ সালে জেল থেকে পালিয়ে চোরাপথে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে যান তিনি। সোনারপুর থানা এলাকার কারবালায় একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতে শুরু করে আশরাফ। পরিচয় গোপন রেখে সোনারপুর নরেন্দ্রপুর এলাকায় ধূপকাঠি ফেরি করত সে।

সোনারপুর থানার এক তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, দিন তিনেক আগে এক ব্যক্তি একটি বাংলাদেশের সংবাদপত্রের ২০১৩ সালের পাতা থানায় জমা করে দিয়েছিলেন। তাতে বাংলাদেশের পুলিশ আশরাফকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাচ্ছে এমন একটি ছবিসহ খবর ছিল।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, ওই ছবির সূত্র ধরে সোনারপুর থানা এলাকায় খোঁজ নেওয়া শুরু হয়। এরপর জানা যায়, একই চেহারার এক ব্যক্তি নরেন্দ্রপুর থানা এলাকায় ধূপকাঠি বিক্রি করে। কারবালার একটি বাড়িতে ভাড়া থাকে বলেও জানা যায়। সোমবার রাতে ওই ভাড়াবাড়িতে অভিযান চালিয়ে আশরাফকে আটক করে। পুলিশ তার কাছে থেকে বেশ কিছু বাংলাদেশি টাকা উদ্ধার করে। জিজ্ঞাসাবাদের সময় নিজের সব দোষ আশরাফ স্বীকার করেছে বলে দাবি তদন্তকারীদের।

এক তদন্তকারী জানান, বহু বাংলাদেশি অপরাধী পালিয়ে এসে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে বলে খবর রয়েছে। এমনকি স্থানীয় অপরাধীদের সঙ্গে নিয়ে দল তৈরি করে এ রাজ্যেও তারা ডাকাতি করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আবার ডাকাতি করে বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনার উদাহরণও রয়েছে।

বারুইপুর  জেলার এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, কারবালার ওই বাড়িতে আশরাফ একা থাকত না, বেশ কয়েকজন তার সঙ্গে থাকত বলে প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে। পুলিশ সূত্রের খবর, আশরাফকে পুলিশি হেফাজতে নিয়ে ওই সঙ্গীদের খোঁজ করা হবে। এখানে কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিল কি না তা-ও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অনুপ্রবেশ আইনের ধারায় আশরাফকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাংলাদেশ পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে। কিভাবে সে জেল থেকে পালিয়ে এসে ডেরা তৈরি করেছিল, তা খতিয়ে দেখা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা