kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৪ রবিউস সানি     

ভৈরবে যাত্রীকে ট্রেন থেকে ফেলে দিলেন চালক

যাত্রীর পাথর নিক্ষেপে চালক আহত

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি    

২৬ মার্চ, ২০১৯ ২৩:৪৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভৈরবে যাত্রীকে ট্রেন থেকে ফেলে দিলেন চালক

ছবি: কালের কণ্ঠ

কিশোরগঞ্জের ভৈরব রেলওয়ে জংশন স্টেশনে ইঞ্জিনে চড়তে গিয়ে টাকা কম দেওয়ায় যাত্রীকে ট্রেন থেকে ফেলে দিলেন সোহাগ নামে এক যাত্রীকে ট্রেনের সহকারী চালক সামছুল আলম। এ সময় ক্ষুব্ধ যাত্রীর পাথর নিক্ষেপে মারাত্মক আহত হয়েছেন ওই চালক। স্থানীয়রা সোহাগকে আটক করে রেলওয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। আটককৃত যুবক ভৈরব উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের রঘুন্নাথপুর গ্রামের আব্দুল হাই মিয়ার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ট্রেনের চালকের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দর কষাকষির এক পর্যায়ে ক্ষুব্ধ যাত্রীর পাথর নিক্ষেপে সামসুল আলম (৩৫) নামে ট্রেনের সহকারী চালক আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পাথর নিক্ষেপকারী যাত্রী সোহাগ (২২) রেলওয়ে থানায় আটক রয়েছে। 

জানা যায়, কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী এগার সিন্ধুর (৭৫০) ট্রেনটি আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে ভৈরব স্টেশনে পৌঁছে। ইঞ্জিন ঘুরিয়ে ৩টা ৫ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ভৈরব স্টেশন ছাড়ার সময় সোহাগ ইঞ্জিনে উঠে ট্রেনের সহকারী চালক সামসুল আলমের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দর কষাকষির এক পর্যায়ে চালক সোহাগকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেয়। 

এ সময় ক্ষুব্ধ যাত্রী সোহাগ চালককে উদ্দেশ্য করে পাথর নিক্ষেপ করলে চালক কানে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এ ঘটনায় স্থানীয়রা সোহাগকে আটক করে রেলওয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে এবং চালককে তাৎক্ষণিক একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়। এ ঘটনায় ট্রেনটি ভৈরব স্টেশনে দেড় ঘণ্টা বিলম্বের পর ৪টা ৩৬ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। এতে যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়ে।

অভিযুক্ত সোহাগ জানান, ইঞ্জিনের ভেতর ও বাহিরে ৭-৮ জন যাত্রী ছিল। আমি উঠলে চালক আমার কাছে ঢাকা পর্যন্ত ৫০ টাকা ভাড়া দাবি করে। আমি নরসিংদী নেমে যাব বিধায় ৩০ টাকা দিলে চালক রেগে গিয়ে আমাকে ট্রেন থেকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেয়। পরে আমি পাথর দিয়ে চালককে ঢিল দেই।

ট্রেনের প্রধান চালক কামরুজ্জামান বলেন, ইঞ্জিনে উঠতে দেইনি বলে সে আমাদেরকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করে। ভৈরব রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার এ কে এম কামরুল ইসলাম বলেন, রেলওয়ে পুলিশ এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন।

ভৈরব রেলওয়ে থানার ওসি মো. আব্দুল মজিদ বলেন, ট্রেনের ছাদে ও ইঞ্জিনে ভ্রমণ রোধে রেলওয়ে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে এবং আজকের ঘটনায় আটককৃতের বিরুদ্ধে ইঞ্জিনে ভ্রমণের অপরাধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা