kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

লক্ষ্মীপুরে ঠিকাদারকে মারধর তাহেরপুত্রের

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লক্ষ্মীপুরে ১০ লাখ টাকা চাঁদা না পেয়ে মামুনুর রশিদ মামুন নামে এক ঠিকাদারকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে মেয়রপুত্র আফতাব উদ্দিন বিপ্লবের বিরুদ্ধে। বিপ্লব লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র আবু তাহেরের বড় ছেলে। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার (২৪ মে) দুপুরে মামুন বাদী হয়ে বিপ্লবকে প্রধান আসামি করে ২০ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি এজাহার করেছেন। মামুন মেসার্স রিয়া এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী এবং জেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক।

অভিযুক্ত অন্যরা হলো পৌরসভার বাঞ্চানগর এলাকার বাদশাহ মিয়ার ছেলে জুয়েল, আহসান উল্যার ছেলে আবদুল মান্নান, শামছুল হকের ছেলে কিরন, জামাল হোসেনের ছেলে তানিম, আবদুর রহিমের ছেলে হারুনুর রশিদ, পশ্চিম লক্ষ্মীপুরের কিসমত চৌধুরীর ছেলে পরান, স্টেডিয়াম রোডের শাহাদাত হোসেন খোকন ও অজ্ঞাতপরিচর আরো ১২ জন। তারা বিপ্লবের সহযোগী হিসেবে পরিচিত।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, তাহেরপুত্র বিপ্লব অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম হত্যা মামলার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। পরে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রয়াত জিল্লুর রহমান তাঁর ফাঁসির দণ্ড মওকুফ করেন। ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর বিপ্লব কারামুক্ত হন। এরপর থেকেই বাহিনী গঠন করে তিনি বিভিন্ন ঠিকাদার ও ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চাঁদা আদায়সহ নানা অপকর্ম করে আসছেন। গত বুধবার (২২ মে) রাতে ‘ঈদের খরচের জন্য’ ১৪-১৫টি মোটরসাইকেলে আরোহণকারী বিপ্লবের লোকজন পৌরসভার সাহাপুর এলাকার ঠিকাদার মামুনের বাড়িতে হাজির হয়। এরপর তারা ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এ সময় দাবি করা টাকা দিতে তারা ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটামও দিয়ে আসে। 

পরদিন বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে লক্ষ্মীপুর শহরে যাওয়ার পথে মামুনকে পাকড়াও করে। মামুনকে শার্টের কলার ধরে টেনে বিপ্লব ও সঙ্গীয় আসামিরা তমিজ মার্কেট এলাকার পিংকি প্লাজার নিচে নিয়ে যায়। মামুনের অভিযোগ—এ সময় মাথায় পিস্তল ধরে বিপ্লব ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। টাকা দিতে অপারগতা জানালে তাঁকে এলোপাতাড়ি কিলঘুষি মেরে জখম করে। এ সময় আসামি জুয়েল তাঁকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টাও করে।

আফতাব উদ্দিন বিপ্লব বলেন, চাঁদা দাবি ও মারধরের অভিযোগ সঠিক নয়।

সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোসলেহ উদ্দিন বলেন, ‘লিখিত অভিযোগটি পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা