kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৫ জুন ২০১৯। ১১ আষাঢ় ১৪২৬। ২২ শাওয়াল ১৪৪০

তিন শর্তে পাটকল শ্রমিকদের কর্মসূচি এক সপ্তাহ স্থগিত

আজ সকাল থেকে কাজে যোগদান

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা   

২২ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিজেএমসি (বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন) খুলনা অঞ্চলের ৯টি পাটকলের শ্রমিকরা তিনটি শর্তে তাদের ধর্মঘট-অবরোধের সব কর্মসূচি এক সপ্তাহের জন্য স্থগিত ঘোষণা করেছে। গতকাল মঙ্গলবার খুলনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক শেষে শ্রমিক নেতারা এ কথা বলেন। বৈঠকে পাটকল শ্রমিক লীগ, সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদ ও যুগ্ম শ্রম পরিচালকের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে সমঝোতা হওয়া তিনটি শর্ত হলো—আগামীকাল বৃহস্পতিবারের মধ্যে শ্রমিকদের কমপক্ষে দুই সপ্তাহের মজুরি ও কর্মচারীদের এক মাসের বেতন পরিশোধ করা; এই সময়ের মধ্যে মজুরি কমিশনের পে-স্লিপ দেওয়া এবং আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে বকেয়া সব মজুরি ও বেতন পরিশোধ করা। 

শ্রমিকরা আজ বুধবার সকাল থেকে কাজে যোগ দেবে।

গতকাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয় মিলনায়তনে বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. হেলাল হোসেন। এতে আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিক লীগ ও সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক মোতাহার হোসেন, বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিক লীগ খুলনা-যশোর অঞ্চলের আহ্বায়ক ও ক্রিসেন্ট জুট মিলসের সিবিএ সভাপতি মো. মুরাদ হোসেন, ক্রিসেন্ট জুট মিলসের সিবিএ সভাপতি সোহরাব হোসেন, প্লাটিনাম জুট মিলসের খলিলুর রহমান প্রমুখ। পরে শ্রমিক নেতা মুরাদ হোসেন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি জানান, কর্তৃপক্ষের পক্ষে জেলা প্রশাসক বকেয়া মজুরি-ভাতা পরিশোধ ও মজুরি কমিশনের রোয়েদাদ বাস্তবায়নে কার্যকর উদ্যোগ নেবেন বলে বলেছেন। এ জন্য শ্রমিকরা তাদের কর্মসূচি এক সপ্তাহের জন্য স্থগিত করছে। এ সময়ের মধ্যে পাওনা পরিশোধ ও মজুরি কমিশনের রোয়েদাদ বাস্তবায়নসংক্রান্ত পে-স্লিপ না দিলে শ্রমিকরা আবার রাস্তায় নামতে বাধ্য হবে।

পাটকল শ্রমিক লীগ এবং সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদ ৯ দফা দাবিতে গত ১৩ মে থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট এবং সড়ক ও রেলপথ অবরোধের ডাক দেয়। প্রতিদিন বিকেল ৪টায় শ্রমিকরা নগরের খালিশপুরের খুলনা-যশোর রোডের নতুন রাস্তার মোড়ে সড়ক এবং পাশেই রেলপথ অবরোধ করছিল। আজ বুধবার ও কাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছিল।

এর আগে গত ৫ মে দুপুর থেকে একে একে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলের উত্পাদন বন্ধ করে দেয় শ্রমিকরা। আর ৭ মে থেকে সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করছিল। বিজেএমসি খুলনা অঞ্চলের খালিশপুরের প্লাটিনাম, ক্রিসেন্ট, খালিশপুর, দৌলতপুর ও স্টার; আটরা শিল্প এলাকার আলিম ও ইস্টার্ন এবং নওয়াপাড়া এলাকার জেজেআই ও কার্পেটিং জুট মিলের শ্রমিকরা এ কর্মসূচিতে অংশ নেয়।  এর আগে ২, ৩ ও ৪ এপ্রিল দেশের সব পাটকলে একযোগে ৭২ ঘণ্টা ধর্মঘট এবং চার ঘণ্টা করে রাজপথ ও  রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা। ১৫ এপ্রিল ৯৬ ঘণ্টার ধর্মঘটের কর্মসূচি শুরু হলে বিজেএমসি চেয়ারম্যান ও শ্রম প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে পাটকল শ্রমিক নেতাদের সমঝোতার ভিত্তিতে শ্রমিকরা কর্মসূচি প্রত্যাহার করে কাজে যোগ দেয়। কিন্তু প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী মজুরি না পাওয়ায় শ্রমিকরা আবার বিক্ষুব্ধ হয়ে রাস্তায় নামে।

শ্রমিকদের দাবি—পাট খাতে অর্থ বরাদ্দ, বকেয়া মজুরি পরিশোধ, মজুরি ও উত্পাদনশীলতা কমিশনের রোয়েদাদ ২০১৫ কার্যকর, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের পিএফ ও গ্র্যাচুইটির অর্থ পরিশোধ, চাকরিচ্যুত শ্রমিক-কর্মচারীদের পুনর্বহাল, সব মিলে সেটআপের অনুকূলে শ্রমিক-কর্মচারীদের শূন্য পদের বিপরীতে নিয়োগ ও স্থায়ীসহ ৯ দফা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা