kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

রিভিউ আবেদন খারিজ

মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্প অবৈধই থাকল

৬ মাসের মধ্যে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঢাকার সাভারের আমিনবাজারে বিলামালিয়া ও বৈলারপুর মৌজায় গড়ে ওঠা মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্প অবৈধ ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের দেওয়া রায় বহালই থাকল। প্রায় সাত বছর আগের দেওয়া রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে করা পাঁচটি রিভিউ আবেদন গতকাল বৃহস্পতিবার খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের সাত বিচারপতির বেঞ্চ গতকাল এ আদেশ দেন। মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্তৃপক্ষ মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেড এবং সেখানে প্লটগ্রহীতাদের পক্ষ থেকে পৃথকভাবে এই পাঁচটি রিভিউ আবেদন করা হয়েছিল। ২০১৩ ও ২০১৪ সালে এসব রিভিউ আবেদন দাখিল করা হয়েছিল। রিভিউ আবেদনকারীর পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মুনসুরুল হক চৌধুরী, আব্দুল মতিন খসরু ও আবদুস সাত্তার। বেলার পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার ফিদা এম কামাল, অ্যাডভোকেট এ এম আমিনউদ্দিন, সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান ও সাঈদ আহমেদ কবির।

গতকাল আপিল বিভাগের আদেশের পর অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান সাংবাদিকদের বলেন, আপিল বিভাগ থেকে রিভিউ আবেদন খারিজ হওয়ার মধ্য দিয়ে চূড়ান্তভাবেই মধুমতি মডেল টাউন অবৈধই থাকল। ফলে আগামী ছয় মাসের মধ্যে ভরাট করা মাটি সরিয়ে ওই জমি আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম জলাশয় আইনে কোনো আবাসন কম্পানির শাস্তি হলো। 

তবে মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক এলাকায় প্লট ক্রেতাদের সংগঠন মধুমতি মডেল টাউন প্লট ওনার্স ফাউন্ডেশনের মহাসচিব এম আখতার হোসেন বলেন, ‘২০০৩ সালে আমরা যখন প্লট কিনেছিলাম তখন প্রতি শতাংশ জমির দাম ছিল তিন হাজার ২০০ টাকা। এখন সেটি চার লাখ ১১ হাজার টাকা।’ তিনি বলেন, আমরা আদালতের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। বর্তমান বাজারমূল্য দিলেই শুধু আমরা জমির মালিকানার দাবি ছাড়ব। অন্যথায় আদালতের শরণাপন্ন হব।’

প্রায় সাত বছর আগে আপিল বিভাগের দেওয়া রায়ে প্লট ক্রেতাদের দ্বিগুণ পরিমাণ টাকা ফেরত দিতে মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়। রায়ে বলা হয়, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ১০০ বিঘার বেশি সম্পত্তি রাখতে পারবে না। রায়ে প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য সাভারের বিলামালিয়া ও বৈলারপুর মৌজা এলাকায় অবস্থিত প্রকল্পের জায়গা আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে নির্দেশ দেওয়া হয়। ভরাট করা মাটি অপসারণ এবং ছয় মাসের মধ্যে জলাভূমিগুলোকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে আবাসন কম্পানি মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডের প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্ধারিত সময়ে মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস রায় বাস্তবায়ন না করলে রাজউককে এই রায় বাস্তবায়নে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রায়ে বলা হয়, রাজউক ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি ছাড়াই মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেড আমিনবাজার এলাকায় মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্প নামে আবাসিক এলাকা গড়ে তোলে, যা সম্পূর্ণ অবৈধ।

মন্তব্য