kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

মাদরাসার শিশু শিক্ষার্থীর চিকিৎসা হলো না

কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগ

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে অসুস্থ হয়ে পড়লেও মাদরাসার এক শিশু শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে না পাঠানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাদরাসা কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও সময়মতো হাসপাতালে না নেওয়ার কারণে প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া আবাসিক ছাত্রী খাদিজা আক্তার গতকাল বুধবার সকালে মারা যায় বলে পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেছে।

খাদিজা উপজেলা সদরের হালিমা সাদিয়া (রা.) কওমি মহিলা মাদরাসার মক্তব প্রথম শ্রেণির আবাসিক ছাত্রী ছিল। সে পাকুন্দিয়া উপজেলার চরপাড়াতলা গ্রামের আবদুল কাদিরের মেয়ে। মেয়েটির বাবা হোসেনপুর সদরে লেপ-তোশকের দোকানে কাজ করেন। আর শিশুটি হোসেনপুর সদরের জামাইল গ্রামে তার নানা ইসমাইল হোসেনের বাড়িতে থেকে পড়ালেখা করত।

ইসমাইল হোসেন জানান, সাত দিনের ছুটি শেষে মঙ্গলবার দুপুরে তিনি নিজে তাঁর নাতনি খাদিজাকে মাদরাসায় দিয়ে যান। রাতে বাড়ি থেকে খাবারও পাঠানো হয়। পরে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে না পাঠিয়ে ভোরে তাঁকে মাদরাসা থেকে ফোন দেওয়া হয়। পরে বাবা সকাল পৌনে ৭টায় মাদরাসায় গিয়ে মেয়েকে হাসপাতালে নিলে চিকিত্সক মৃত ঘোষণা করেন।

মাদরাসার কয়েকজন ছাত্রী জানায়, রাতে হঠাৎ বমি করতে থাকে খাদিজা। কিন্তু ওভাবেই ওকে ঘুম পাড়িয়ে রাখা হয়। ভোরে অবস্থার অবনতি হলে শিশুটিকে হাসপাতালে না পাঠিয়ে বিষয়টি তার নানাকে জানানো হয়।

মাদরাসার সহকারী শিক্ষক মার্জিয়া আক্তার জানান, ভোরে ফজরের নামাজের সময় তিনি গিয়ে মেয়েটিকে ছটফট করতে দেখেন। এ অবস্থায় তিনি মাদরাসার প্রধান মুফতি আবুল ফাতাহকে ফোনে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে মাদরাসাপ্রধান বিষয়টি তার নানাকে জানান।

মন্তব্য