kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

সিটিটিসি প্রধান বলেন

বাংলাদেশে আইএসের কোনো খলিফা নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। নিকট ভবিষ্যতে বাংলাদেশে জঙ্গি হামলার কোনো আশঙ্কা নেই। এ বিষয়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে সমন্বয় রয়েছে। ভবিষ্যতে এ সমন্বয় আরো মজবুত হবে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

‘মিট উইথ মনিরুল ইসলাম’ শিরোনামে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব)। অনুষ্ঠানে ক্র্যাবের সভাপতি আবুল খায়ের, সাধারণ সম্পাদক দীপু সারওয়ার, ডিএমপির উপকমিশনার (ডিসি-মিডিয়া) মাসুদুর রহমানসহ ক্র্যাব নেতারা এবং সিটিটিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শ্রীলঙ্কাসহ সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন দেশে ঘটে যাওয়া জঙ্গি হামলার ধরন ও বাংলাদেশের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় ধর্মীয় উপাসনালয়ে বর্বর সন্ত্রাসী হামলা একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এ আত্মঘাতী হামলার ঘটনা বাংলাদেশের উগ্রবাদী সংগঠনগুলোকে অনুপ্রাণিত করতে পারে। সংগঠনগুলো সাংগঠনিকভাবে দুর্বল থাকায় নিকট ভবিষ্যতে তাদের বড় ধরনের কোনো হামলার সক্ষমতা নেই। যদিও অনেক সংগঠন নতুন করে সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে, তবে এই মুহূর্তে সেটা আশঙ্কার কারণ নয়। আমরা এ বিষয়ে তৎপর রয়েছি। যেহেতু সন্ত্রাসবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা, তাই কোনো দেশ, জাতি ও ধর্মের সঙ্গে এটা সম্পৃক্ত করা যাবে না। উন্নয়নশীল, অনুন্নয়নশীল এবং উন্নত—কোনো দেশই এ সন্ত্রাসের থাবা থেকে নিরাপদ নয়।’

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে গিয়ে জঙ্গি সংগঠনে যোগ দেওয়া সদস্যরা ফিরতে চাইলে দেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘২০১৪ সালের শেষ দিকে কতিপয় লোক বিদেশে গিয়ে আইএসে যোগদান করেছে বলে কথিত আছে। ধারণা মতে, তাদের কেউ ধরা পড়েছে, কেউ নিহত হয়েছে অথবা কেউ চিহ্নিত হয়েছে। তাদের পাসপোর্টের মেয়াদও এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। আমাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে দেশে আসা সম্ভব নয়। তার পরও কেউ যদি ফিরে আসতে চায় তাহলে বিমানবন্দরেই তাদের গ্রেপ্তার করা হবে।’

বাংলাদেশে আইএসের খলিফা নিয়োগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা আইএসের নিজস্ব দাবি। বাংলাদেশে তাদের কোনো খলিফা নাই।

মন্তব্য