kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ১৬৫০ মিটার

মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ১৬৫০ মিটার

পদ্মা সেতুতে গতকাল বসেছে আরো একটি স্প্যান। এর মাধ্যমে সেতুর ১৬৫০ মিটার দৃশ্যমান হলো। ছবিটি জাজিরা প্রান্ত থেকে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

মাত্র ১৩ দিনের ব্যবধানে গতকাল মঙ্গলবার পদ্মা সেতুর পিলারের ওপর বসল আরো একটি স্প্যান। জাজিরা প্রান্তে সেতুর ৩৩ ও ৩৪ নম্বর পিলারের ওপর একাদশ স্প্যান ‘৬-সি’ বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হলো এক হাজার ৬৫০ মিটার। এর আগে গত ১০ এপ্রিল মাওয়া প্রান্তে বসানো হয় দশম স্প্যান। এ পর্যন্ত শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে ৯টি স্প্যানে এক হাজার ৩৫০ মিটার এবং মাওয়া প্রান্তে দৃশ্যমান হয়েছে ৩০০ মিটার। আর ৩০টি স্প্যান বসানোর মাধ্যমেই সেতুর আকৃতি দেখাবে ছয় দশমিক ১৫ কিলোমিটার বা পুরো পদ্মা সেতু। এখন থেকে প্রতি মাসেই একাধিক স্প্যান পিলারের ওপর বসানোর পরিকল্পনা মাথায় রেখে কর্তৃপক্ষ পদ্মা সেতুর কাজ এগিয়ে নিচ্ছে।

গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টা ২০ মিনিটে সেতুর ৩৩ ও ৩৪ নম্বর পিলারের ওপর ধূসর রঙের ১৩ দশমিক ৬ মিটার প্রস্থ, ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ও তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের ‘৬-সি’ স্প্যানটিকে নির্ধারিত পিলারের ওপর দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীদের চেষ্টায় সফলভাবে বসানো হয়। এর আগে গত সোমবার সকালে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে তিন হাজার ৬০০ টন ধারণক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ক্রেন বহন করে রওনা দেয়। এরপর সকাল সোয়া ১০টায় নির্ধারিত পিলারের কাছে পৌঁছায় জাহাজটি।

পদ্মা সেতুর দায়িত্বশীল এক প্রকৌশলী জানান, মাওয়া প্রান্তে ১৪ ও ১৫ নম্বর পিলারের ওপর বসবে ১২তম স্প্যানটি। এর জন্য মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে ‘৩-বি’ স্প্যানটিতে এখন চলছে রঙের কাজ।

তিনি আরো জানান, ২৯৪টি পাইলের মধ্যে ২৫৫টির কাজ শেষ হয়েছে। এ ছাড়া জাজিরা প্রান্তে রেলওয়ে বক্স স্ল্যাব ২৮৮টি, রোডওয়ে বক্স স্ল্যাব বসেছে ছয়টি। গতকাল স্প্যান বহনকারী ক্রেনটিকে ৩৩ ও ৩৪ নম্বর পিলারের মধ্যবর্তী স্থানে নোঙর করে রাখা হয়। পজিশন করে রাখার পর ইঞ্চি ইঞ্চি মেপে পিলারের উচ্চতায় ওঠানো হয় স্প্যানটি। এরপর রাখা হয় পিলারের বেয়ারিংয়ের ওপর। ৩৪ নম্বর পিলারের ওপর রাখা স্প্যানের সঙ্গে জোড়া দেওয়া হবে স্প্যানটিকে। পরবর্তী স্প্যান ‘৬-বি’ সেতুর ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলারের ওপর বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে সংশ্লিষ্টদের। আরো জানা যায়, জাজিরায় এখন দশটি পিলারে (৩৩, ৩৪, ৩৫, ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১ ও ৪২) ৯টি স্প্যান। এ ছাড়া মাওয়া প্রান্তে ১৩, ১৪ ও ৪, ৫ নম্বর পিলারে একটি স্থায়ী স্প্যান ও একটি অস্থায়ী স্প্যান বসানো হয়েছে।

পদ্মা সেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। সেতু নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

মন্তব্য