kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

ব্রণমুক্ত ত্বক পেতে যা করতে হবে

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্রণমুক্ত ত্বক পেতে যা করতে হবে

বয়ঃসন্ধিকাল থেকেই ব্রণের সমস্যায় ভোগে ছেলে-মেয়ে-নির্বিশেষে সবাই। কোনোটা ছোট, কোনোটা বড়। পুঁজভর্তি, ব্যথা। আবার ব্রণ কমে যাওয়ার পর মুখভর্তি দাগ। ক্রমাগত ব্রণ হতে হতে ত্বকের বারোটা বাজে। ফলে অনেক সময় অনেকে মানসিক অবসাদেও ভোগে। তৈলাক্ত ত্বক, জিনগত ও হরমোনের সমস্যা, খাদ্যাভ্যাসে ত্রুটি— এসবই মূলত ব্রণ হওয়ার জন্য দায়ী। ব্রণ এড়াতে প্রসাধনী বা ক্রিম ব্যবহারের পাশাপাশি খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনলে উপকার পেতে পারেন। এটি ত্বকের ঔজ্জ্বল্য ফিরিয়ে আনতেও সাহায্য করতে পারে। জেনে নিন সুন্দর ও ব্রণমুক্ত ত্বকের জন্য যে খাবারগুলো খেতে হবে।

বাদামি চাল : বাদামি চাল ভিটামিন ‘বি’, প্রোটিন, ম্যাগনেসিয়াম ও বিভিন্ন অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের সমৃদ্ধ উৎস। ভিটামিন ‘বি’ ত্বকের জন্য স্ট্রেস বাস্টার হিসেবে কাজ করে, যা হরমোনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ব্রণ প্রতিরোধ করে।

রসুন : ত্বকের প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাহায্য করে। অ্যালিসিন নামক একটি প্রাকৃতিক রাসায়নিক রয়েছে রসুনে। এ উপাদান অনেক ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করে এবং ব্রণ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

ব্রকোলি : এতে আছে ভিটামিন ‘এ’, ‘বি কমপ্লেক্স’, ‘সি’, ‘ই’ এবং ভিটামিন ‘কে’। এই অ্যান্টি-অক্সিডেন্টগুলো বার্ধক্যজনিত কারণে ত্বকের ক্ষতি রোধ ও উজ্জ্বলতা রক্ষা করে।

মাছ : ওমেগা ৩ ও ওমেগা ৬ ফ্যাটি এসিডের উৎস হলো মাছ। ব্রণ কমাতে বেশি করে মাছ খেতে হবে। ফ্যাটি এসিড ত্বকের প্রদাহ কমায়। সার্ডিন ও স্যালমন মাছ ত্বকের জন্য খুবই ভালো।

বাদাম : জিংক ও সেলেনিয়ামের মতো খনিজ পদার্থের অভাবে ব্রণ হতে পারে। বেশির ভাগ বাদামে সেলেনিয়াম, ভিটামিন ‘ই’, তামা, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম ও লোহা রয়েছে, যা স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য অত্যাবশ্যক।

মৌরি : হজমের উন্নতি করে। শরীর থেকে অতিরিক্ত বিষাক্ত তেল বের করে দেয়, ত্বকের প্রদাহ কমায়। ফলে পেতে পারেন ব্রণের সমস্যা থেকে রেহাই।

গ্রিন টি : অনেক গবেষণাতেই প্রমাণিত যে ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে গ্রিন টি বা সবুজ চা। সারা দিনে বেশি করে সবুজ চা খান। মুখের যে অংশে ব্রণের প্রভাব বেশি সেখানে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের জন্য ঠাণ্ডা চা ব্যাগ বুলিয়ে নিতে পারেন।

লাল আঙুর : এর বীজে আছে প্রাকৃতিক রাসায়নিক ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা ত্বকের প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। আঙুরটি ত্বকের এলার্জি নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করতে পারে।

ক্যারোটিনোয়েড : ব্রণের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হয় ক্যারোটিনোয়েড। গাজর, শাক, বাঁধাকপি, ফুটি, আম, পেঁপে, মটরশুঁটি, টমেটো খান বেশি করে। আর তাতে ত্বক পাবে পর্যাপ্ত ক্যারোটিনোয়েড। কমবে ব্রণের সমস্যা।

এনডিটিভি অবলম্বনে শরীফ উল্লাহ

মন্তব্য