kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

ভুয়া বকেয়া বিলে দিনমজুরের জেল

পল্লী বিদ্যুতের ১১ জন বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভুয়া বকেয়া বিলে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার মোচাগড়া গ্রামের দিনমজুর আব্দুল মতিনের জেলের ঘটনায় সম্পৃক্ততার দায়ে ১১ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি)। পাশাপাশি ভুক্তভোগী মতিনের কাছে দুঃখ প্রকাশ ও ক্ষমা প্রার্থনা করেছে সংস্থাটি।

গতকাল শনিবার আরইবির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মুঈন উদ্দিন ফোনে আব্দুল মতিনের সঙ্গে কথা বলে দুঃখ প্রকাশ করেন। মুঈন উদ্দিন গণমাধ্যমকে জানান, এই ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে, সে জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। যাঁদের বরখাস্ত করা হয়েছে তাঁদের মধ্যে রয়েছেন সংশ্লিষ্ট লাইনম্যান, লাইন নির্মাণ পরিদর্শক, ওয়্যারিং পরিদর্শক, মেসেঞ্জার, বিলিং সহকারী, জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার প্রমুখ।

জানা গেছে, দেবীদ্বার জোনাল অফিসের ডিজিএম মৃণাল কান্তিকে প্রধান করে দুই সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। তাঁদের প্রাথমিক তদন্তে সংশ্লিষ্ট ১১ জনকে বরখাস্ত করার সুপারিশ করার পরিপ্রেক্ষিতে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কোম্পানীগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম মো. হাবিবুর রহমানের বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাঁর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এরই মধ্যে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১-এর জেনারেল ম্যানেজারও দিনমজুর মতিনের বাড়িতে গিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। মতিনকে আর্থিকভাবে ক্ষতিপূরণ দিয়েছে আরইবি। মতিনের বাড়িতেও তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে।

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার মোচাগড়া গ্রামের দরিদ্র আব্দুল মতিনের বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল না। তবু ১৭ মাসের বিদ্যুৎ বিল বাকির মামলায় জেলে ঢোকানো হয়েছিল তাঁকে।

এ ব্যাপারে গত ১৭ এপ্রিল কালের কণ্ঠে খবর প্রকাশিত হলে পরের দিন কুমিল্লার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে জামিন পান মতিন। এর আগে একটি সংবাদপত্রে ‘বাড়িতে নেই সংযোগ, তবু বকেয়া বিদ্যুৎ বিলের মামলায় কারাগারে দিনমজুর’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

মন্তব্য