kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

প্রকল্প বাতিল

পাইপলাইনে খুলনায় গ্যাস মিলবে না!

গৌরাঙ্গ নন্দী, খুলনা   

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পাইপলাইনে খুলনায় বাসাবাড়িতে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার প্রকল্পটি বাতিল করা হয়েছে। এ কারণে ৮১২ কিলোমিটার সরবরাহ লাইনের পাইপ খুলনা থেকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এ নিয়ে খুলনার নাগরিকসমাজ তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

জানতে চাইলে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব নাজমূল আহসান টেলিফোনে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বাসাবাড়িতে আর গ্যাস সংযোগ দেওয়া হচ্ছে না। অনেক আগে ঢাকা ও চট্টগ্রামে পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সংযোগ দেওয়া হয়েছিল। বর্তমানে সেখানকার অনেক পাইপ কার্যক্ষমতা হারিয়েছে। সেই পাইপ পরিবর্তন করার জন্য খুলনা থেকে সরবরাহ লাইনের পাইপ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কারণ পাইপ বেশিদিন অব্যবহৃত পড়ে থাকলে তা নষ্ট হয়ে যাবে।’ একই সঙ্গে তিনি জানান, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের শিল্প-কলকারখানায় গ্যাস সংযোগ দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

জানা যায়, খুলনা তথা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহের দাবিতে দীর্ঘদিন রাজপথে কর্মসূচি পালন করেছে। খুলনাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৬ সালে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা থেকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা হয়ে খুলনায় গ্যাস সঞ্চালন প্রকল্প জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) অনুমোদন করে। গঠিত হয় সুন্দরবন গ্যাস কম্পানি। প্রাথমিকভাবে ২০০৯ সালের মধ্যে সঞ্চালন লাইন স্থাপন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের কথা থাকলেও নানা জটিলতায় তা আটকে যায়। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর বিষয়টি নিয়ে জোর আলোচনা হয়। নির্ধারিত হয়, ২০১২ সালের মধ্যে খুলনা অঞ্চলে গ্যাস সরবরাহ করা হবে। পরবর্তী সময়ে স্থির হয়, ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে খুলনার আড়ংঘাটা থেকে ২২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সংযোগ দেওয়া হবে। এরই মধ্যে সঞ্চালন লাইন, আড়ংঘাটায় ল্যান্ডিং স্টেশনসহ অন্যান্য স্থাপনার কাজও শেষ হয়। এরপর গৃহীত হয় বাসাবাড়ি ও শিল্পপ্রতিষ্ঠানে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার জন্য সরবরাহ লাইন স্থাপন প্রকল্প। এই প্রকল্পের আওতায় বাসাবাড়ি ও শিল্পপ্রতিষ্ঠানে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার জন্য ৮১২ কিলোমিটার সরবরাহ লাইন স্থাপনের প্রকল্প গৃহীত হয়, যা সম্প্রতি বাতিল করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব শেখ আশরাফ উজ জামান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘খুলনাবাসীর দীর্ঘ আন্দোলনের ফসল পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ প্রকল্প। অথচ গ্যাসসংকটের অজুহাতে সেই প্রকল্প বাতিল করাটা দুঃখজনক।’

খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ খুলনা জেলা শাখার সভাপতি শেখ হারুনুর রশিদ বলেন, ‘একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের শেষ পর্যায়ে এসে বাতিল করাটা দুঃখজনক।’

সুন্দরবন গ্যাস কম্পানি লিমিটেডের উপমহাব্যবস্থাপক (উন্নয়ন) মো. সালাউদ্দীন বলেন, ‘বাসাবাড়িতে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার প্রকল্প বাতিল হলেও সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে শিল্প-কলকারখানা ও বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সংযোগ দেওয়া হবে। সে ক্ষেত্রে জাতীয় গ্রিড থেকে গ্যাস সরবরাহ করা হবে।’

মন্তব্য