kalerkantho

বুধবার। ১৯ জুন ২০১৯। ৫ আষাঢ় ১৪২৬। ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

ভোটার তালিকা হালনাগাদ

রোহিঙ্গা ঠেকাতে কঠোর ইসি

বিশেষ প্রতিনিধি   

১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রোহিঙ্গা ঠেকাতে কঠোর ইসি

ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার ক্ষেত্রে এবারও রোহিঙ্গা অধ্যুষিত ৩২ উপজেলায় বিশেষ নজর রাখছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। রোহিঙ্গারা কোনোভাবেই যাতে ভোটার হতে না পারে সে বিষয়ে ১০ দফা নির্দেশনাসহ কঠোর তৎপরতা রাখতে মাঠপর্যায়ের নির্বাচন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া  হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ইসির সমন্বয় সভায় ওই নির্দেশনা দেওয়া হয়। আগামী ২৩ এপ্রিল থেকে ভোটারযোগ্য নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ বিষয়ে হয়েছে সভাটি।

সভা শেষে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে ইসিসচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ জানান, ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার ক্ষেত্রে কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি ও চট্টগ্রামের ৩২ উপজেলাকে বিশেষ এলাকা ঘোষণা করা হয়েছে। এসব এলাকায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের বিশেষ কমিটি রয়েছে। তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গারা যাতে কোনোভাবেই ভোটার হতে না পারে সে জন্য বিশেষ উদ্যোগ রয়েছে আমাদের। ভোটার নিবন্ধনে এসব বিশেষ এলাকায় বিশেষ ফরম ব্যবহার হবে। এবারও আমরা নির্দেশ দিয়েছি, রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকায় ইউএনওর নেতৃত্বে গঠিত কমিটির সুপারিশ ছাড়া কাউকে ভোটার করা যাবে না।’

যে ৩২ উপজেলায় সতর্কতা : রোহিঙ্গা অধ্যুষিত বিশেষ উপজেলাগুলো হলো—কক্সবাজারের সদর, চকরিয়া, টেকনাফ, রামু, পেকুয়া, উখিয়া, মহেশখালী ও কুতুবদিয়া; বান্দরবানের সদর, রুমা, থানচি, বোয়াংছড়ি, আলীকদম, লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি; রাঙামাটির সদর, লংগদু, রাজস্থলী, বিলাইছড়ি, কাপ্তাই, বাঘাইছড়ি, জুরাছড়ি ও বরকল এবং চট্টগ্রামের বোয়ালখালী, পটিয়া, আনোয়ারা, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, বাঁশখালী, রাঙ্গুনিয়া ও কর্ণফুলী।

ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী বিশেষ তথ্য ফরমে প্রদত্ত সব জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর অনলাইনে যাচাই করতে হবে। যাচাইকালে (ক) ভাই-বোনের ডাটাবেইসে পিতা-মাতার নামের সঙ্গে আবেদনকারীর ফরম-১-এ উল্লিখিত পিতা-মাতার নামের মিল থাকতে হবে। (খ) চাচা-ফুফুর ডাটাবেইসে তাদের পিতার নাম ও ঠিকানার সঙ্গে আবেদনকারীর বিশেষ তথ্য ফরমে প্রদত্ত পিতামহের নাম ও ঠিকানার মিল থাকতে হবে। (গ) প্রয়োজনে নিকট আত্মীয়ের মোবাইল নম্বরে কথা বলে তাদের পরিচিতি বা তথ্য সম্পর্কিত বিষয়ে নিশ্চিত হতে হবে।

এ ছাড়া উপজেলা বিশেষ কমিটি প্রতিটি ফরম পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে যাচাই-বাছাই করে সিদ্ধান্ত দেবে। রোহিঙ্গাদের ভোটার হওয়ার বিষয়ে যদি কেউ তাদের সহযোগিতা করে, মিথ্যা তথ্য দেয়, জাল কাগজপত্র সরবরাহ করে অথবা সংশ্লিষ্ট কারো গাফিলতি প্রমাণ হয় তবে তার বিরুদ্ধে ভোটার তালিকা আইন অনুযায়ী ফৌজদারি মামলা করতে হবে।

হিজড়াদের পরিচয়ে ভোটার : ইসি সচিব জানান, এবার হালনাগাদকালে হিজড়া পরিচয়ে ভোটার হতে পারবেন তৃতীয় লিঙ্গের নাগরিকরা। ভোটার নিবন্ধন ফরমে ‘লিঙ্গ পরিচয়’ অপশনে নারী, পুরুষের পাশাপাশি হিজড়াও রাখা হয়েছে। হিজড়া সমপ্রদায়ের জন্য আলাদা ভোটার তালিকা থাকবে।

উদ্বুদ্ধকরণ : ইসি সচিব জানান, ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম সামনে রেখে মাঠপর্যায়ে ব্যাপক প্রচার ও উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি নিতে বলা হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের, মসজিদে ইমামদের মাধ্যমে, নারী ভোটারদের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে আলাদা প্রচারমূলক কার্যক্রম চালাতে বলা হয়েছে। তথ্য সংগ্রহকারী যাতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করেন সে বিষয়েও তদারকি করা হবে বলে জানান সচিব।

স্মার্ট কার্ড মিলবে : এবার নতুন ভোটাররা তালিকাভুক্ত হবেন আগামী ৩১ জানুয়ারি। জাতীয় পরিচয়পত্র সংগ্রহের সময় তাঁদের হাতে স্মার্ট কার্ড দেওয়া হবে বলে জানান ইসি সচিব। বর্তমানে ১০ কোটি ৪২ লাখের বেশি নাগরিক ভোটার তালিকাভুক্ত। হালনাগাদে প্রায় ৮০ লাখ নাগরিকের তথ্য সংগ্রহ করা হবে এবার। কম বয়সীরা ১৮ বছর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তালিকাভুক্ত হবেন। হালনাগাদের সময় ১০ আঙুলের ছাপ ও চোখের আইরিশের ছাপও নিয়ে রাখা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা