kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

খালেদার লন্ডনে যাওয়ার ব্যাপারে কিছুই জানে না পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘প্যারোল’ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার লন্ডনে যাওয়ার ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কিছুই জানে না বলে দাবি করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওই দাবি করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, ‘সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার প্যারোল নিয়ে লন্ডন যাওয়ার ব্যাপারে আমরা কথাবার্তা শুনছি। এ ব্যাপারে নাকি প্রস্তুতি চলছে। আপনাদের কাছে এ ধরনের কোনো তথ্য আছে কি?’ জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এ ধরনের কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই।’

এরপর জানতে চাওয়া হয়, ‘(এ ব্যাপারে) ব্রিটিশ হাইকমিশন থেকে যোগাযোগ করা হয়েছে কি না?’ উত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই। এখন পর্যন্ত কোনো তথ্য আমরা পাইনি।’

উল্লেখ্য, দুর্নীতির মামলায় কারাগারে থাকা খালেদা জিয়া ‘প্যারোল’ নিয়ে বিদেশে যাওয়ার সম্ভাবনা সম্পর্কিত তথ্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে দিন-তারিখ উল্লেখ করে প্রকাশিত হয়েছে। তবে বিএনপি বরাবরই এ ধরনের সম্ভাবনা নাকচ করে আসছে।

শেখ হাসিনার ব্রুনেই সফরে সাত এমওইউর সম্ভাবনা : এদিকে আগামী রবিবার থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তিন দিনের ব্রুনেই সফরে সাতটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হতে পারে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ এমওইউগুলো কৃষি খাতে বৈজ্ঞানিক এবং প্রযুক্তি, সংস্কৃতি এবং শিল্প, যুব এবং ক্রীড়া, মৎস্য, পশুসম্পদ ও জ্বালানি ক্ষেত্রে সহযোগিতা বিষয়ে। এ ছাড়া ওই সফরে কূটনৈতিক ও সরকারি পাসপোর্টধারীদের পারস্পরিক ভিসা অব্যাহতির লক্ষ্যে কূটনৈতিক পত্র বিনিময় হতে পারে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ব্রুনেই সফরে আলোচনায় জনশক্তি, বিনিয়োগ খাত গুরুত্ব পাবে। এ ছাড়া রোহিঙ্গা ইস্যুতে আলোচনা হবে। বিশেষ করে, মিয়ানমারের ভেতর ‘সেফ জোন’ (নিরাপদ অঞ্চল) সৃষ্টিতে বাংলাদেশ ব্রুনেইয়ের সহযোগিতা চাইবে।

ফেরদৌস ঠিক করেননি : ভারতে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর দায়ে চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদের ভিসা বাতিল করা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে নির্বাচনের সময় কেউ (বিদেশি) যদি কোনো দলের পক্ষে প্রচারণা চালান আপনারা কী মনে করবেন? অনেকেই এটি পছন্দ নাও করতে পারে। আমরা মনে করি, আমাদের দেশের নামিদামি লোক অন্য দেশে গিয়ে এটি বোধ হয় ঠিক করেননি। তিনি নিজেই দুঃখ প্রকাশ করেছেন। সো... দ্যাটস অ্যানাফ। (তাই, এটিই যথেষ্ট)।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকারি কোনো প্রতিনিধির ক্ষেত্রে হলে তিনি অবশ্যই বিদেশে গিয়ে কারো পক্ষে-বিপক্ষে প্রচারণা চালানো থেকে বিরত থাকতে বলবেন। এরপর তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পই এ ধরনের উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন। ট্রাম্প অন্য দেশের সরকারের পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা