kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

দুই লাখ টাকার মুক্তিপণ দিয়ে মুক্তি ব্যবসায়ীর

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নান্দাইলের মো. ফিরোজ আহম্মেদ (৩৫) নামের এক ব্যবসায়ী ময়মনসিংহ থেকে বাড়ি ফেরার পথে একদল দুর্বৃত্ত কর্তৃক অপহৃত হন। পরে তাঁর কাছে থাকা চার লাখ টাকা ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নেওয়া প্রায় দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ নিয়ে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। গত মঙ্গলবার রাতে ময়মনসিংহ শহরে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় গতকাল বুধবার ময়মনসিংহ কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

ফিরোজ সিংরুইল ইউনিয়নের নামা কচুরী গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে। তিনি একজন পাথর ব্যবসায়ী। 

ফিরোজ জানান, গত মঙ্গলবার সকালে ব্যাবসায়িক কাজে ময়মনসিংহ শহরের বড় বাজারে যান। সেখান থেকে কাজ সেরে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে নান্দাইলের বাসে ওঠার জন্য শম্ভুগঞ্জ ব্রিজের কাছে যান। এ সময় ১০-১২ জনের একটি দল তাঁর হাত-পা চেপে, চোখ বেঁধে একটি মাইক্রোবাসে উঠিয়ে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে তাঁর কাছে থাকা চার লাখ হাতিয়ে নিয়ে তাঁর পরিবারের কাছে আরো ১০ লাখ টাকা চাইতে নির্দেশ দেয় দুর্বৃত্তরা। এত টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাঁকে গুলি করে মাথা উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এ অবস্থায় প্রাণভয়ে এক লাখ টাকা দিতে চাইলে দুর্বৃত্তরা বিকাশের তিনটি নম্বরে ওই টাকা পরিবারকে পাঠাতে বলে।

ফিরোজের ভাই মো. রফিকুজ্জামান রফিক জানান, ফিরোজ ফোন দিয়ে জানান জীবিত পেতে চাইলে ওই টাকা দ্রুত পাঠাতে হবে। বাধ্য হয়েই তিনি তিনটি বিকাশ নম্বরে এক লাখ টাকা পাঠান। তার পরও ভাইকে ছেড়ে দিতে রাজি হয়নি দুর্বৃত্তরা। তারা ৩০ মিনিটের মধ্যে আরো এক লাখ টাকা দাবি করে। পরে আরো ৯০ হাজার টাকা পাঠানো হয় একটি রকেট ও অন্যটি ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের নম্বরে। মোট এক লাখ ৯০ হাজার টাকা পাঠানোর পরও কখন কিভাবে ছাড়া হবে তার কোনো দিকনির্দেশনা দেয়নি দুর্বৃত্তরা। বিভিন্ন ধরনের টালবাহানা শুরু হলে এক ধরনের শঙ্কায় পড়ে যায় পুরো পরিবার। পরে জেলা পুলিশ সুপারকে ঘটনা অবহিত করলে র‌্যাব-১৪ ও ডিবি পুলিশ যৌথ অভিযানে ফিরোজকে উদ্ধারে নামে। একপর্যায়ে রাত ১১টার দিকে অপহৃত ফিরোজের মোবাইল নম্বর থেকে ফোন পেয়ে শম্ভুগঞ্জ ব্রিজের পাশে একটি ময়লার স্তূপের কাছ থেকে ফিরোজকে উদ্ধার করে তারা।

ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ইন্সপেক্টর শাহ কামাল জানান, ঘটনাটি রহস্যজনক। অপরাধীদের ধরার জন্য একটি দল মাঠে রয়েছে।

মন্তব্য