kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

রাষ্ট্রপতির চিঠি পেয়ে অনুপ্রাণিত কৃষক রহিম

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষর করা একটি চিঠি পেয়ে কক্সবাজারের কৃষক রহিম উল্লাহ (৩৮) মহাখুশি। রাষ্ট্রপতি তাঁর চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, ‘আমি নিজেও একজন কৃষকের সন্তান। তাই আমি দেশের কৃষকদের দুঃখ-বেদনার কথা সবচেয়ে বেশি অনুভব করি।’ রাষ্ট্রপতি কৃষক রহিম উল্লাহর বাউকুল বাগান নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এ রকম সাফল্যে অন্যরাও অনুপ্রাণিত হয়ে দেশের কৃষি ও ফসল উৎপাদনে এগিয়ে আসবেন।

কক্সবাজারের ঈদগাহ ইউনিয়নের মধ্যম মাইজপাড়া গ্রামের বাসিন্দা রহিম উল্লাহ। তিনি পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন ঈদগড়ে ১৩ একর পাহাড়ি সমতল জমি বর্গা নিয়ে বাউকুল চাষ করেছেন। গত ১০ বছরে বেশ ভালো করছিলেন এ চাষি। তবে উপর্যুপরি গত দুই বছর ঘূর্ণিঝড় ও বর্ষণের কারণে পুষিয়ে উঠতে পারেননি। এর আগের বছর বাগানের ৩৭ লাখ টাকার বাউকুল বিক্রি করে তিনি লাভ করেছিলেন ১১ লাখ টাকা। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আই-এ শাইখ সিরাজের উপস্থাপনায় কৃষিবিষয়ক ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অনুপ্রাণিত হয়ে রহিম উল্লাহ বাউকুল, ধান ও মাছ চাষ শুরু করেন। তিনি ঈদগড় এলাকায় আট একর জমিতে ধান চাষ করছেন। সেই সঙ্গে ৩০ একর জমির একটি ঘেরে মিঠা পানির মাছ চাষও করছেন রহিম।

রহিম সাংবাদিকদের জানান, টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজের সঙ্গে পরিচয়ের সূত্র ধরে তিনি গেল মৌসুমে তাঁর বাগানে উৎপাদিত বাউকুল পাঠিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে। তিনি রাষ্ট্রপতির পাঠানো চিঠিটি পেয়েছেন শাইখ সিরাজের মাধ্যমে। গত মাসে কক্সবাজারের ঈদগাহ এলাকায় আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে শাইখ সিরাজের হাত থেকে রহিম চিঠিটি গ্রহণ করেন।

রহিম বলেন, ‘আমার মতো একজন নগণ্য কৃষক মহামান্য রাষ্ট্রপতির চিঠি পাওয়ার বিষয়টি অনেক বড় ব্যাপার। এই চিঠি আমাকে নাড়া দিয়েছে। আমি এবার আরো এগিয়ে যাব।’

মন্তব্য