kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৮ জুন ২০১৯। ৪ আষাঢ় ১৪২৬। ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

উত্তরায় গৃহকর্মীর মৃত্যু

হত্যার অভিযোগে বিক্ষোভ বাসার সামনে আগুন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর উত্তরা থেকে বৈশাখী (১২) নামের এক গৃহকর্মীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অন্যদিকে হত্যার অভিযোগে বৈশাখীর আত্মীয়-স্বজন ও এলাকাবাসী ওই বাড়ির সামনে বিক্ষোভ করে। তারা বাড়ির সামনে আগুন জ্বালিয়ে হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করে। পরে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে পুলিশ।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের ১৮ নম্বর সড়কের ৫ নম্বর বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ। খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ওই বাড়ির দিকে ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে বিক্ষুব্ধরা।

বৈশাখীর স্বজনরা সাংবাদিকদের জানান, দুই মাস আগে বৈশাখী ওই বাড়ির গৃহকর্তা রিফাত ফেরদৌসের বাসায় কাজে যোগ দেয়। কয়েক দিন আগে তার দাদি মারা গেলে সে গ্রামের বাড়ি নওগাঁ যায়। গত সোমবার ঢাকা ফিরলে তার মা তাকে ওই বাসায় পৌঁছে দেন। বাড়ি থেকে আসার পরই ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার খবর কেউ বিশ্বাস করতে পারছে না। তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ জানায়, গৃহকর্মীর লাশটি ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে। গৃহকর্তা রিফাত ফেরদৌস একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। এক শিশুসন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে ওই বাসায় থাকেন তিনি। গতকাল দুপুরে রিফাতই পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে একটি কক্ষের দরজা ভেঙে জানালা থেকে বৈশাখীর ঝুলন্ত লাশটি উদ্ধার করে।

রিফাত পুলিশকে জানান, ছুটির দিন বলে তাঁরা গতকাল ঘুম থেকে দেরি করে উঠেছেন। উঠে দেখেন পাশের ঘরের দরজা লাগানো এবং গৃহকর্মীর সাড়াশব্দ পাওয়া যাচ্ছে না। পরে তাঁরা ডাকাডাকি করেন। কিন্তু কোনো কাজ না হওয়ায় সন্দেহ হলে পুলিশকে খবর দেন।

বৈশাখীর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে তার আত্মীয়-স্বজন ছুটে আসেন। মেয়েটিকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তাঁরা। এলাকার লোকজনও তাঁদের সঙ্গে যোগ দেয়। পরে তারা বাসার সামনে বিভিন্ন পরিত্যক্ত জিনিসপত্র জড়ো করে আগুন ধরিয়ে দেয়। ওই বাড়ির নিচতলা থেকে সাইকেলসহ বিভিন্ন জিনিস নিয়ে তাতেও আগুন দেওয়া হয় বলে জানা গেছে। আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গেলে বিক্ষুব্ধরা ফায়ার সার্ভিসকে বাধা দেয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা