kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

শীতের বিদায়ে সবজিতে স্বস্তি শেষ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শীতের বিদায়ে সবজিতে স্বস্তি শেষ

শীত মৌসুমে নানা পদের সবজিতে ভরা থাকে বাজার। সরবরাহ যথেষ্ট থাকায় দামও থাকে ভোক্তার নাগালে। শীত বিদায় নিয়েছে। ফলে সবজির সরবরাহ কমে যাওয়ায় বাড়তে শুরু করেছে দাম। সহনীয় দামে সবজি কেনার স্বস্তিটুকু আর নেই।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর রামপুরা, হাতিরপুল, সেগুনবাগিচা, ফার্মগেট, বাড্ডাসহ বেশ কটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মৌসুম পরিবর্তনের এ সময়টায় বাজারে আসতে শুরু করেছে নতুন কিছু সবজি। বরবটি, পটোল, করল্লা, ঢেঁড়স এসব নতুন সবজি কিনতে ক্রেতাদের গুনতে হচ্ছে চড়া দাম। একই সঙ্গে পুরনো সবজির মধ্যে বেগুন, শিম, কপি, টমেটোর দামও প্রতি পিস বা কেজিতে ৫-১০ টাকা বাড়তি দামে কিনতে হচ্ছে। বর্তমানে বেশির ভাগ সবজির দামই ৪০ টাকা কেজি বা তারও বেশি।

প্রতি পিস ফুলকপি সপ্তাহ দুয়েক আগে ২০-২৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বর্তমানে ওই কপি বাজারভেদে ৩০-৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বেশির ভাগ বাজারে এই দামে কপি মিললেও হাতিরপুল বাজারে প্রতি পিস কপির দাম হাঁকা হচ্ছে ৪০ টাকা। বিভিন্ন প্রকারের শিম বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকায়। 

নতুন আসা সবজির মধ্যে বরবটি বিক্রি হচ্ছে বাজারভেদে ৯০ থেকে ১২০ টাকা পর্যন্ত। পটোল, করল্লা বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে। ঢেঁড়স, কচুর লতি ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি।

রামপুরা বাজারের সবজি বিক্রেতা শরিফুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানান, চলতি সপ্তাহে দুই দিন বৃষ্টি হয়েছে। সে সময় পাইকারি বাজারে সবজির দাম বেড়ে যায়, তা আর কমেনি।

৮০ টাকা কেজি দরে প্রতি কেজি ঢেঁড়স বিক্রি করছিলেন বাড্ডা গুদারাঘাটের সবজি বিক্রেতা হাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, ‘নতুন সবজি তো, দাম বেশিই থাকে।’

কারওয়ান বাজার ক্ষুদ্র আড়তদার সমিতির সভাপতি এ টি এম ফারুক বলেন, ‘শীত মৌসুম শেষ। এখন নতুন নতুন সবজি আসছে বাজারে। শুরুতে নতুন সবজির সরবরাহ কম থাকে। এ কারণে বাড়তি দামে বিক্রি হয়।’

মন্তব্য