kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

অর্থ আত্মসাতের মামলা

এসএ গ্রুপের শাহাবুদ্দিন তিন দিনের রিমান্ডে

আদালত প্রতিবেদক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় এসএ গ্রুপ ও লায়ন বনস্পতি প্রডাক্টস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহাবুদ্দিন আলমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের পুলিশি হেফাজত মঞ্জুর করা হয়েছে। গতকাল রবিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোরশেদ আল মামুন ভূঁইয়া শুনানি শেষে এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

শুনানিতে রাজধানীর গুলশান থানায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক সামছুল আলম আসামিকে পাঁচ দিন হেফাজতে (রিমান্ড) নেওয়ার আবেদন করেন। তিনি বলেন, মামলায় আনা অভিযোগের বিষয়ে প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটনের জন্য আসামিকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।

সিএমএম আদালতে দুদকের প্রসিকিউশন সূত্র জানায়, শুনানির আগে কারাগারে থাকা আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। তাঁর পক্ষে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন বাতিল করে জামিনের আবেদন করা হয়। বিচারক এই আবেদন নামঞ্জুর করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, দ্য ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেডের কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় শাহাবুদ্দিন আলম ব্যাংকের গুলশান শাখায় সঞ্চয়ী হিসাব খুলে নিয়মবহির্ভূতভাবে বিপুল পরিমাণ অর্থ নগদে ও পে-অর্ডারের মাধ্যমে জমা ও উত্তোলন করেন। বিভিন্ন সময়ে তাঁর স্ত্রী, ছেলে-মেয়েদের এবং তাঁদের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের নামে বিভিন্ন শাখার মোট ২৫টি হিসাবে নগদ ও পে-অর্ডারের মাধ্যমে মোট ১৫৯ কোটি ৯৫ লাখ ৪৯ হাজার ৬৪২ টাকা সন্দেহজনক লেনদেন করেন।

গত ২৮ অক্টোবর দুদকের উপপরিচালক সামছুল আলম গুলশান থানায় মামলাটি দায়ের করেন। শাহাবুদ্দিন আলম ছাড়াও এ মামলায় তাঁর স্ত্রী ও লায়ন বনস্পতির চেয়ারম্যান ইয়াসমিন আলম, ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী মোশতাক আহম্মেদ, অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে এম শামীম, এসভিপি জিয়া উদ্দিন আহম্মেদ, দেলোয়ার হোসেন ও ফারমার্স ব্যাংকের অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক ওরফে বাবুল চিশতীকে আসামি করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ব্যাংক এশিয়ার চেক জালিয়াতির অভিযোগে চট্টগ্রামের ইপিজেড থানায় গত বছরের ১৫ নভেম্বর দায়ের করা একটি মামলায় চলতি বছরের গত ১৭ অক্টোবর শাহাবুদ্দিন আলমকে রাজধানীর গুলশান থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ। ওই মামলায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর থেকে তিনি কারাগারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা