kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

রোহিঙ্গাদের জন্য ৮০০ কোটি টাকা দেবে এডিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মিয়ানমার থেকে প্রাণভয়ে বাংলাদেশের উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য ১০ কোটি ডলার (৮০০ কোটি টাকা) অনুদান দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। এডিবির এই অর্থ রোহিঙ্গাদের জন্য পানি সরবরাহ, বিদ্যুৎ, রাস্তাঘাট ও পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থায় খরচ হবে। এ বিষয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ সরকার ও এডিবির মধ্যে একটি চুক্তি সই হয়েছে।

চুক্তিতে বাংলাদেশের পক্ষে সই করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব কাজী শফিকুল আযম। এডিবির পক্ষে সই করেন ঢাকায় এডিবির আবাসিক প্রতিনিধি মনমোহন প্রকাশ। ওই সময় দুই পক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সেচকাজে সোলার পাম্প স্থাপন ও মাধ্যমিক শিক্ষার উন্নয়নে গতকাল এডিবির সঙ্গে আলাদা দুটি চুক্তি সই হয়েছে। সেচ প্রকল্পে তিন কোটি ডলার এবং মাধ্যমিক শিক্ষার উন্নয়নে ২২ কোটি ডলার ঋণ দেবে এডিবি। সব মিলিয়ে তিনটি প্রকল্পে ৩৫ কোটি ডলারের (দুই হাজার ৮০০ কোটি টাকা) ঋণ ও অনুদানের চুক্তি হয়েছে এডিবির সঙ্গে।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে মনমোহন প্রকাশ বলেন, রোহিঙ্গাদের সাহায্য করার জন্য অনুদানের বিষয়ে এডিবির বার্ষিক সভায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে কথা হয়েছে। এখন চুক্তির মাধ্যমে তা চূড়ান্ত হলো। তিনি বলেন, যারা বাস্তুচ্যুত, তাদের সহায়তা দিতে এডিবির আলাদা কোনো তহবিল নেই। তার পরও সদস্য দেশগুলো দ্রুত ইতিবাচক সাড়া দেওয়ায় এডিবি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তিনি বলেন, এডিবির এই অনুদান রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন, দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, বিদ্যুৎ ও সড়ক নির্মাণে ব্যয় করা হবে।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে জানানো হয়, রোহিঙ্গাদের সহযোগিতার জন্য নেওয়া প্রকল্পে মোট খরচ হবে ১২ কোটি ডলার, যার মধ্যে এডিবি অনুদান দেবে ১০ কোটি ডলার। বাকি দুই কোটি ডলার রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে দেওয়া হবে।

ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আযম বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য এডিবি মোট ২০ কোটি ডলার অনুদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এর মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ১০ কোটি ডলারের চুক্তি হলো। প্রকল্প বাস্তবায়নের সফলতার ওপর নির্ভর করে পরের ১০ কোটি ডলার পাওয়া যাবে।

ইআরডি সচিব বলেন, মাধ্যমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির তৃতীয় পর্যায়ের আওতায় এডিবি ২২ কোটি ডলার (এক হাজার ৭৬০ কোটি টাকা) ঋণ দেবে। এই টাকা দিয়ে মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যক্রমের উন্নয়ন, শিক্ষণ পদ্ধতি উন্নয়ন, সমতার ভিত্তিতে শিক্ষা গ্রহণে সুবিধা বাড়ানো হবে। এ ছাড়া ঝরে পড়া রোধে ব্যবস্থা এবং শিক্ষা ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনা কার্যক্রম জোরদার করা হবে।

অন্যদিকে এডিবির ঋণের তিন কোটি ডলার দিয়ে দেশের পল্লী এলাকায় দুই হাজার সৌরবিদ্যুত্চালিত সেচ পাম্প স্থাপন করা হবে। ১০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মাধ্যমে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

মন্তব্য