kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

সুজন সম্পাদকের বিবৃতি

স্বার্থান্বেষী মহল গল্প ফাঁদছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বার্থান্বেষী মহল গল্প ফাঁদছে

বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটের গাড়িতে হামলার ঘটনা সম্পর্কে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন সুজন (সুশাসনের জন্য নাগরিক) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার। গতকাল বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি নৈশভোজের অতিথি ও অনুষ্ঠান সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেছেন।

বিবৃতিতে ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, ‘হামলার ঘটনা নিয়ে স্বার্থান্বেষী মহল নানাভাবে ষড়যন্ত্র তত্ত্বের গল্প ফাঁদছে। তারা বিভিন্নভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে নৈশভোজের বিষয়টি ছিল নিতান্তই একটি পারিবারিক অনুষ্ঠান। এর তারিখ নির্ধারণ করা হয় নিরাপদ সড়কের দাবিতে কিশোর বিক্ষোভ শুরুর ২০ দিন আগে। ৩ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আমি মার্শা বার্নিকাটকে আমন্ত্রণ জানাই। তিনি সম্মতি দিয়ে তারিখ নির্ধারণে প্রটোকল কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগের অনুরোধ করেন। ই-মেইলের মাধ্যমে যোগাযোগে তিনি নৈশভোজটি আয়োজনের সময় দেন।

৪ আগস্ট আমার বাসায় নৈশভোজে যোগ দেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট, ড. কামাল হোসেন ও তাঁর স্ত্রী ড. হামিদা হোসেন এবং জনাব এম হাফিজউদ্দিন খান। অসুস্থতার কারণে জনাব খানের স্ত্রী আমন্ত্রিত হলেও যোগ দিতে পারেননি। আমার স্ত্রী, পুত্র, পুত্রবধূ ও দুই কন্যাসহ মোট দশজন নিয়ে ছিল এই নৈশভোজ। অথচ সেই নৈশভোজের সাথে সংশ্রবহীন আরো কিছু ব্যক্তিত্বের নাম জড়ানোর চেষ্টা হচ্ছে, যাদের কাউকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।’

হামলা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘রাত আনুমানিক ১১টার সময় বার্নিকাট যখন গাড়িতে উঠতে যাচ্ছিলেন, তখন একদল দুর্বৃত্ত হামলা করে। তারা একজন ড্রাইভার ও আমার ছেলের ওপর আক্রমণ করে। দুর্বৃত্তরা বার্নিকাটের গাড়ির পেছন পেছন ধাওয়া করে এবং ইটপাটকেল ছুড়ে মারে। রাষ্ট্রদূত আমার বাসায় যখন আসেন তখন তাঁর সাথে সিকিউরিটি প্রটেকশনের দুটি সরকারি গাড়ি ছিল এবং তাদের তৎপরতার ফলেই তিনি ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত প্রস্থান করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

রাষ্ট্রদূতের ওপর হামলা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্কের জন্য যেমন ক্ষতিকর, তেমনি এটিকে নিয়ে মহলবিশেষের অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রতত্ত্বের আশ্রয় নেওয়াও অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমি এই ন্যক্কারজনক হামলা ও অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। দ্রুততার সঙ্গে আমি এ ঘটনার বিচার চাই। আমার এবং পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানাই।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা