kalerkantho

রবিবার । ২৬ মে ২০১৯। ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২০ রমজান ১৪৪০

ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে মামলা

আত্মসমর্পণ ছাড়াই আপিলের অনুমতি চান নাজমুল হুদা

আদেশ ৭ জানুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঘুষ নেওয়ার অভিযোগের মামলায় নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ ছাড়াই হাইকোর্টের সাজার বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করার অনুমতি চেয়েছেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। তাঁর এ আবেদনের ওপর আগামী ৭ জানুয়ারি আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

নাজমুল হুদার আবেদনের ওপর শুনানিকালে আদালত বলেছেন, ‘আগে আত্মসমর্পণ। আইনে এর বাইরে অন্য কিছু নেই।’ আদালতে নাজমুল হুদা নিজেই শুনানি করেন। এ সময় দুদকের পক্ষে আইনজীবী হিসেবে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। আদালতে নাজমুল হুদা বলেন, ‘আপিল বিভাগের আগের আদেশ আইনসম্মত হয়নি।’ আদালত বলেন, ‘আপিল বিভাগের আদেশ চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করার সুযোগ নেই। আপিল বিভাগের আদেশ অমান্য করায় ভারতের এক বিচারপতির ছয় মাসের কারাদণ্ড হয়েছিল তা কি আপনি জানেন? সুতরাং আত্মসমর্পণের আগে অন্য কোনো আবেদনের ওপর শুনানির আইনগত সুযোগ নেই।’ 

নাজমুল হুদা বলেন, ‘আমাকে সময় দেওয়া হোক। আমি দেখাতে পারব। এরপর আদালত আগামী ৭ জানুয়ারি আদেশের দিন নির্ধারণ করেন।’

আকতার হোসেন লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর জাহির হোসেনের কাছ থেকে দুই কোটি ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে ২০০৭ সালের ২১ মার্চ দুদক নাজমুল হুদা দম্পতির বিরুদ্ধে ধানমণ্ডি থানায় মামলা করে। এ মামলায় জাতীয় সংসদ ভবনসংলগ্ন এমপি হোস্টেলে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত একই বছরের ২৭ আগস্ট এক রায়ে নাজমুল হুদাকে সাত বছর ও সিগমা হুদাকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেন।

এ রায়ের বিরুদ্ধে ওই দম্পতি হাইকোর্টে আপিল করেন। এ আপিলের ওপর শুনানি শেষে ২০১১ সালের ২০ মার্চ এক রায়ে হাইকোর্ট তাঁদের খালাস দেন। হাইকোর্টের এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আপিল করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এরপর আপিল বিভাগ ২০১৪ সালের ১ ডিসেম্বর হাইকোর্টের রায় বাতিল করেন এবং ফের হাইকোর্টে বিচার করার নির্দেশ দেন। এরপর মামলাটির ফের শুনানি শেষে গত ৮ নভেম্বর হাইকোর্ট রায় দেন। রায়ে নাজমুল হুদাকে চার বছর কারাদণ্ড এবং সিগমা হুদাকে তাঁর কারাভোগকালীন সময়কে সাজা হিসেবে ঘোষণা করেন। আদালত নাজমুল হুদাকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন। এ রায়ের কপি পাওয়ার ৪৫ দিনের মধ্যে তাঁকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। কিন্তু নাজমুল হুদা আত্মসমর্পণ না করে আপিল বিভাগের রায়ের বিরুদ্ধে রিট আবেদন করেন।

 

মন্তব্য