kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

দুর্গাপূজায় সারা দেশে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৯:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুর্গাপূজায় সারা দেশে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশ

হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপনের লক্ষ্যে সারা দেশে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মাঠপর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। এরই মধ্যে দুর্গাপূজা নিরাপদে উদযাপনের লক্ষ্যে পুলিশ প্রাক-পূজা, পূজা চলাকালীন ও পূজা-পরবর্তী সময়ে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে।

আজ সোমবার পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের হল অব প্রাইড কনফারেন্সরুমে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নিরাপত্তাসংক্রান্ত এক সভায় এ নির্দেশ দেন তিনি।

আইজিপি বলেন, সাম্প্রদায়িক সমপ্রীতি এ দেশের মানুষের অস্তিত্বের সঙ্গে মিশে আছে।

বিজ্ঞাপন

সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে বলে আশা করছি। পুলিশপ্রধান কমিউনিটি পুলিশ সদস্য এবং বিট পুলিশ কর্মকর্তাকে সংশ্লিষ্ট পূজা উদযাপন কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে পূজার সার্বিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকার অনুরোধ জানান।

সভায় উপস্থিত হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবারও পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে আইজিপির প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং বাংলাদেশ পুলিশকে ধন্যবাদ জানান। দুর্গাপূজা নিরাপদে উদযাপনের লক্ষ্যে পুলিশ প্রাক-পূজা, পূজা চলাকালীন ও পূজা-পরবর্তী সময়ে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে।

সভায় সব পূজামণ্ডপে সিসি ক্যামেরা স্থাপন এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে হ্যান্ডহেল্ড মেটাল ডিটেক্টর ও আর্চওয়ে গেইট স্থাপন, পূজামণ্ডপে সার্বক্ষণিক স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ, নারী ও পুরুষের জন্য পৃথক প্রবেশ ও প্রস্থান পথের ব্যবস্থা, পূজামণ্ডপ ও বিসর্জনস্থলে পর্যাপ্ত আলো, স্ট্যান্ডবাই জেনারেটর/চার্জার লাইটের ব্যবস্থা করা, আজান ও নামাজের সময় উচ্চশব্দে মাইক ব্যবহার না করার জন্য পূজা উদযাপন কমিটির প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে। এ ছাড়া যেকোনো জরুরি প্রয়োজনে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল করার জন্যও অনুরোধ করা হয়েছে।

সভায় অতিরিক্ত আইজি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) এম খুরশীদ হোসেন, স্পেশাল ব্রাঞ্চের প্রধান (অতিরিক্ত আইজি) মো. মনিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জে. এল. ভৌমিক ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দার, মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি মনীন্দ্র কুমার নাথ ও সাধারণ সম্পাদক রমেন মণ্ডল, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের স্বামী কল্পেশানন্দ প্রমুখ এবং ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এতে সব মেট্রোপলিটন কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি ও পুলিশ সুপাররা ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন। এ বছর সারা দেশে প্রায় ৩২ হাজার ১৬৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপন হবে।



সাতদিনের সেরা