kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০২২ । ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সরকার ও এনজিওর সম্পর্ককে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ প্রদানের উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৬:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সরকার ও এনজিওর সম্পর্ককে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ প্রদানের উদ্যোগ

ছবি- কালের কণ্ঠ।

সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে এনজিওগুলো সরকারকে সহায়তা করেছে। দারিদ্র্য বিমোচনে কয়েক দশক ধরে তাদের সহযোগিতাপূর্ণ অবস্থান প্রশংসা করার মতো। ফলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সরকার-এনজিওর এই সম্পর্ককে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। দ্রুতই এটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ নেবে।

বিজ্ঞাপন

আজ রবিবার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচি জোরদার করার জন্য সরকারি-বেসরকারি সংস্থার যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত কর্মশালায় এ মন্তব্য করেন মন্ত্রিপরিষদের সমন্বয় ও সংস্কার বিভাগের সচিব মো. সামসুল আরেফিন। কর্মশালায় আরো অংশ নেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব মোহাম্মদ খালিদ হাসান, এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর পরিচালক তপন কুমার বিশ্বাস, ব্র‍্যাকের ঊর্ধ্বতন পরিচালক কে এ এম মোর্শেদসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তারা।

কর্মশালায় সামসুল আরেফিন বলেন, "সামাজিক নিরাপত্তা সুসংহত করতে সরকার ২০১৫ সালে 'জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশল' প্রণয়ন করেছে। সমাজের সর্বস্তরে সুষম উন্নতির লক্ষ্যে, সমাজ থেকে দারিদ্র্য ও অসমতা মোচনে কৌশলপত্রটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে জাতীয় বাজেটের ২.৫৮ শতাংশ ব্যয় করছে সরকার। টাকার অঙ্কে যার পরিমাণ প্রায় এক লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা। "

তিনি আরো বলেন, 'সরকার কল্যাণমূলক সমাজ গড়তে অঙ্গীকারবদ্ধ। সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলপত্র বাস্তবায়নে সরকার ও এনজিওগুলো একটি প্ল্যাটফর্মে কাজ করবে। '

তিনি বলেন, 'কল্যাণমূলক সমাজ গঠনে সরকারের প্রতিশ্রুতি বাজেটেও প্রতিফলিত হয়েছে। দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে ব্যয় করা হয়েছ মোট বাজেটের ১৬.৭৫ শতাংশ অর্থ। সরকারের কার্যকর পরিকল্পনা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-২০১৩ অর্জনের প্রধান নিয়ামক হিসেবে কাজ করেছে। '

কর্মশালায় সরকার ও এনজিওর সম্পর্ক প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচির পরিকল্পনা ও অগ্রগতি তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদের যুগ্ম সচিব খালিদ হাসান। তিনি বলেন, 'সরকার-এনজিও প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে কর্মসূচি বাস্তবায়নে চারটি পদ্ধতি অবলম্বন করা হবে। ৬ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিন দিনব্যাপী সভায় সরকার ও এনজিওর কর্মকর্তারা তাদের পরিকল্পনা তুলে ধরবেন। '

কর্মশালায় ব্র‍্যাকের পরিচালক কে এ এম মোর্শেদ বলেন, 'করোনা মহামারির জন্য সরকার-এনজিও যৌথ প্ল্যাটফর্মের অগ্রগতি কিছুটা পিছিয়ে যায়। ২০২৬ সালের মধ্যে এই প্ল্যাটফর্ম দেশের সামাজিক নিরাপত্তা সুসংহত করতে কাজ করবে। '



সাতদিনের সেরা