kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শুরু হলো শ্রীকাইল অনুসন্ধান কূপের ডিরেকশনাল ড্রিলিংয়ের কাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০১:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শুরু হলো শ্রীকাইল অনুসন্ধান কূপের ডিরেকশনাল ড্রিলিংয়ের কাজ

কুমিল্লার শ্রীকাইল নর্থ-১ অনুসন্ধান কূপের ডিরেকশনাল ড্রিলিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব উক্ত কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (পরিকল্পনা), পেট্রোবাংলা’র চেয়ারম্যান, বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। পরিদর্শনকালে প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে একটি আলোচনা সভাও অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন

 

চলতি বছরের মধ্যে কূপটির খনন কাজ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। কূপ খনন শেষে বাণিজ্যিকভাবে গ্যাস আবিষ্কৃত হলে দৈনিক ১০-১৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস (এমএমএসসিএফ) উৎপাদন হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

পেট্রোবাংলা সূত্রে জানা যায়, দেশীয় গ্যাসের উৎস অনুসন্ধানে কাজ করছে সরকার। এ লক্ষ্যে ২০২২-২০২৫ সময়কালের মধ্যে পেট্রোবাংলা মোট ৪৬টি অনুসন্ধান, উন্নয়ন ও ওয়ার্কওভার কূপ খননের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এরই অংশ হিসেবে বাপেক্স এ বছরের জুন মাসের শেষ সপ্তাহে শ্রীকাইল নর্থ-১ এ অনুসন্ধান কূপ খননের কার্যক্রম শুরু করে।  

ইতোমধ্যে কূপটির ভারটিক্যাল ডিরেকশন এ ১৮২ মিটার খনন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। খনন সংশ্লিষ্ট মালামাল ও তৃতীয় পক্ষীয় সেবা সংগ্রহপূর্বক শনিবার থেকে ডেভিয়েটেড ডিরেকশনে কূপ খননের দ্বিতীয় পর্যায়ের কার্যক্রম শুরু করা হলো। খননতব্য কূপের গভীরতা হবে ৩৫০০ মিটার টিভিডি (° ১০০ মিটার )। খনন কাজে বাপেক্সের নিজস্ব রিগ বিজয়-১২ (জেডজে৫০ ডিবিএস) ব্যবহার করা হচ্ছে। চলতি বছরের মধ্যে কূপটির খনন কাজ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।  

কূপ খনন শেষে বাণিজ্যিকভাবে গ্যাস আবিষ্কৃত হলে দৈনিক ১০-১৫ এমএমএসসিএফ হারে গ্যাস উৎপাদন হতে পারে বলে আশা করা যায়। এ কূপ থেকে গ্যাস পাওয়া গেলে প্রসেস প্লান্ট স্থাপনের প্রয়োজন হবে না, গ্যাস গ্যাদারিং পাইপ লাইন নির্মাণ করে তা নিকটবর্তী প্রসেস প্লান্টের (৫/৬ কি. মি. দূরে অবস্থিত প্রসেস প্লান্ট, যেখানে আরো ২০ এমএমসিএফডি গ্যাস প্রসেসের সক্ষমতা রয়েছে) মাধ্যমে প্রসেস করে জাতীয় গ্রীডে সরবরাহ করা সম্ভব হবে।



সাতদিনের সেরা