kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৩০ সফর ১৪৪৪

'করোনাকালে ১০ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, পুষ্টিহীন ৪১ শতাংশ শিশু'

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৯:০৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'করোনাকালে ১০ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, পুষ্টিহীন ৪১ শতাংশ শিশু'

ছবি- পার্লামেন্ট মেম্বারস ক্লাবে আয়োজিত সভা।

শিশু অধিকার বিষয়ক সংসদীয় ককাসের সভায় ইউনিসেফ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, করোনা মহামারিকালে সারাদেশে ১০ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়েছে। যেখানে নিম্নবিত্ত ও দরিদ্র শিশুরা লেখাপড়া করত। ওই সকল শিক্ষার্থীদের শিক্ষা গ্রহণ এখন সংকটের মুখে।

আজ বৃহস্পতিবার পার্লামেন্ট মেম্বারস ক্লাবে আয়োজিত ওই সভায় ইউনিসেফ পরিচালিত প্রজন্ম (শিশু) সংসদের ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া- ৩ আসনের সদস্য নায়ার হক আরো জানান, বর্তমানে দেশের ৪১ শতাংশ শিশু পুষ্টিহীনতায় ভুগছে।

বিজ্ঞাপন

এছাড়া করোনাকালে বাল্যবিয়ে ও শিশু শ্রম বেড়েছে। এই পরিস্থিতির উন্নয়নে জাতীয় বাজেটের ২০ শতাংশ শিশু সুরক্ষাখাতে বরাদ্দের সুপারিশ করেছেন তিনি।

জবাবে সভাপতির বক্তব্যে ককাসের চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. শামসুল হক টুকু বলেন, 'শিশু সুরক্ষায় একটি সুনির্দিষ্ট বাজেট বরাদ্দ এবং তার ব্যয় নির্বাহে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা প্রয়োজন। শিশুদের জন্য বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে বাজেট বরাদ্দ থাকলেও তার নির্দিষ্ট কোনো রূপরেখা না থাকায় ওই অর্থ যথাযথভাবে ব্যয়ের ক্ষেত্রে নানা রকম জটিলতার সম্মুখীন হতে হয়। এক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট শিশু বাজেট প্রণয়ন হলে বাজেটের পরিকল্পিত বাস্তবায়ন সম্ভব হবে। '

সভায় ডেপুটি স্পিকার বলেন, 'শিশু সুরক্ষায় রাষ্ট্রের অর্থ ব্যয় নিছক ব্যয় নয়, এটা বিনিয়োগ। আজকের এই সকল শিশুরাই দেশ ও জাতি গঠনে একদিন দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখবে। '

এসময় তিনি শিশুদের সুরক্ষায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও দেশি-বিদেশি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাসহ সকল শ্রেণি পেশার মানুষদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, 'জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি সমৃদ্ধ জাতি গঠনের ক্ষেত্রে শিশুদের জন্য সর্বদা আন্তরিক ছিলেন। একজন শিশুর উন্নত ভবিষ্যৎ কিভাবে গড়ে উঠবে, বৃদ্ধদের কিভাবে সমাজে মর্যাদার রাখবেন, নারী কিভাবে জাতি গঠনে অনন্য ভূমিকা রাখবে- এসব বিষয়ে তার একটি সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছিল। '

তিনি আরো বলেন, 'বর্তমান প্রধানমন্ত্রী তার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সেই স্বপ্ন পূরণে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। তার সরকার একটি শিশু বান্ধব সরকার। ' এই সরকারের উন্নয়ন কাজে সকলকে সহযোগিতার আহ্বান জানান তিনি।

সভায় আরো বক্তৃতা করেন ককাসের কো-চেয়ারম্যান আরমা দত্ত, সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি রওশন আরা মান্নান, সংসদ সদস্য আবুল কালাম মো. আহসানুল হক, ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, জাকিয়া তাবাসসুম, উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, তামান্না নূসরাত বুবলি, সৈয়দা রুবিনা আক্তার, কাজী কানিজ সুলতানা, অপরাজিতা হক ও আবিদা আনজুম মিতা, ইউনিসেফের কান্ট্রি ডিরেক্টর শেলডন ইয়েট, প্রজন্ম সংসদের সদস্য রাশিদুল আলম প্রমূখ। সূচনা বক্তব্য উত্থাপন করেন ইউনিসেফ



সাতদিনের সেরা