kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ডিএনসিসির বিশেষ মশক নিধন অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২১:২৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডিএনসিসির বিশেষ মশক নিধন অভিযান

ডিএনসিসির বিশেষ মশক নিধন অভিযান। ছবি- কালের কণ্ঠ।

এডিস মশার প্রকোপ নির্মূলে একযোগে ১০টি অঞ্চলে অভিযান চালিয়ে মামলায় ২ লাখ ২৮ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। বিভিন্ন ভবন স্থাপনা পরিদর্শন করে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় এই জরিমানা করা হয়। এছাড়াও একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ডিএনসিসির ১০টি অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী মাজিস্ট্রেটগণ এসব অভিযান পরিচালনা করেন।

বিজ্ঞাপন

ডিএনসিসির অঞ্চল- ০৪ এর আওতাধীন ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ডেঙ্গু বিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পারসিয়া সুলতানা অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানকালে পশ্চিম মনিপুর এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনের লিফটের হোলে এডিসের লার্ভা থাকায় ষাট হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অঞ্চল- ৩ এর আওতাধীন এলাকায় আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল বাকী অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযান পরিচালনাকালে ৩টি নির্মাণাধীন ভবনে এডিসের লার্ভা পাওয়ায় তিনটি মামলায় মোট ষাট হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।  

এছাড়াও অঞ্চল- ১ এর আওতাধীন ১নম্বর ওয়ার্ডের উত্তরা সেক্টর নম্বর ৭, ৯ ও ১০ এবং ওয়ার্ড ১৭ এর নিকুঞ্জ-১ ও ২, কুড়িল, কুড়াতলী ও জোয়ার সাহারা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান পরিচালনাকালে বাসাবাড়ি ও নির্মাণাধীন ভবনে, ফাঁকা প্লট, ড্রেন ঝোপঝাড়ে কিউলেক্স মশক বিরোধী অভিযান ও সমন্বিতভাবে এডিশ বিরোধী অভিযানে ৩টি স্থানে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় ৩টি মামলায় মোট পঁয়তাল্লিশ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

অঞ্চল- ১০ এর আওতাধীন ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় এডিস মশার প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে বিশেষ  মশক নিধন অভিযান পরিচালনা করেন আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব কাজী জিয়াউল বাসেত। এসময় এডিশ মশার লার্ভা থাকায় ৩টি বাড়িতে ৩টি মামলায় তেঁতত্রিশ হাজার টাকা জরিমানা আদায় ও অপর একটি বাসায় নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়।

অঞ্চল- ২ এর আওতাধীন পল্লবী এলাকায় অভিযানকালে নির্মাণাধীন ভবন ও বিল্ডিং এ এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় ৩টি মামলায় ত্রিশ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান এই অভিযান পরিচালনা করেন।  

অঞ্চল- ৬ এর আওতাধীন ৫১ নম্বর ওয়ার্ডের সেক্টর ১২ এলাকায় আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিয়া আফরীন অভিযান পরিচালনা করেন। এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় ১টি  নির্মাণাধীন ভবনের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা প্রক্রিয়াধীন।

উল্লেখ্য, ১০ সেপ্টেম্বর সকালে রাজধানীর উত্তরায় আজমপুর এলাকায় এডিস ও ডেঙ্গু বিরোধী নাগরিক সচেতনতামূলক প্রচারাভিযানে অংশ নিয়ে ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ডিএনসিসি এলাকায় ডেঙ্গু জ্বরের বাহক এডিস মশা নির্মূলে সপ্তাহব্যাপী বিশেষ অভিযান চালানোর নির্দেশ প্রদান করেন।

এছাড়াও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাগণ বিভিন্ন এলাকায় রাস্তায় ঘুরে ঘুরে জনসাধারণকে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন এবং মাইকিং করে জনসাধারণকে সচেতন করেন।  

ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগে. জেনা. মো. জোবায়দুর রহমান এবং উপ-প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকতা লে. কর্নেল মো. গোলাম মোস্তফা সারওয়ার কয়েকটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন।



সাতদিনের সেরা