kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ অক্টোবর ২০২২ । ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

শ্রমিকদের ওপর জুলুম-নির্যাতন বন্ধের দাবি টিইউসির

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ আগস্ট, ২০২২ ১৯:৫২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শ্রমিকদের ওপর জুলুম-নির্যাতন বন্ধের দাবি টিইউসির

টিইউসির লাল পতাকার বিক্ষোভ মিছিল ছবি- কালের কণ্ঠ

শ্রমিকদের ওপর জুলুম-নির্যাতন বন্ধের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (টিইউসি)। আজ বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর পুরানা পল্টন মোড়ে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে এই দাবি জানানো হয়। এ ছাড়া অবিলম্বে আটককৃত শ্রমিক নেতাদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানানো হয়।

টিইউসি মহানগর কমিটির সহসভাপতি আকরাম হেসেনের সভাপতিত্বে এবং শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান নোবেলের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তৃতা করেন টিইউসির কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক সাহিদা পারভীন শিখা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাদেকুর রহমান শামীম, মহানগর কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুর্শিকুল ইসলাম শিমুল, সমাজকল্যাণ সম্পাদক সেকান্দার হায়াৎ, সাবেক ছাত্রনেতা শরিফুজ্জামান শরিফ প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত টিইউসি মহানগর কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক ও টিইউসি সাভার-আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি কে এম মিন্টু, আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু, আশুলিয়া থানা রিকশা-ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুল মজিদ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন, সহসভাপতি আলম পারভেজ ও মোহাম্মদ নান্নু মিয়ার মুক্তি এবং মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়।

গত ২৫ জুন আশুলিয়া থানা রিকশা-ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদ এবং রিকশা শ্রমিকদের হয়রানি বন্ধের দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে পুলিশ হামলা চালায় এবং পরবর্তীতে নেতাদের নামে মামলা দায়ের করা হয়।

সমাবেশে শ্রমিক নেতা সাহিদা পারভীন শিখা বলেন, ‘দেশের আপামর শ্রমজীবী মানুষ যখন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশাহারা, তখন সরকার শ্রমিকদের জীবন-জীবিকার ওপর আঘাত করছে। শ্রমিকরা যখন ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন করছে, তখন তাদের মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করে শ্রমিক নেতাদের কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। ’

শ্রমিক নেতা আকরাম হোসেন বলেন, ‘দেশে এখন আকাশচুম্বী বৈষম্য চলছে। ওয়াসার এমডি যেখানে ছয় লক্ষ টাকা বেতন পান, তখন একজন চা-শ্রমিক মজুরি পান মাত্র ১২০ টাকা। অন্যদিকে সকল জিনিসের মূল্য লাগামহীন। শ্রমিকরা এক বেলা খেয়ে আরেক বেলা না খেয়ে জীবন ধারণ করছে। এই বিপর্যস্ত সময়েও সরকারি বাহিনীর মামলা-হামলা বন্ধ হচ্ছে না। ’

অধিকার আদায়ে গণ-আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান আকরাম হোসেন।

সমাবেশ থেকে সারা দেশে ২৪১টি চা বাগানের চা শ্রমিকদের চলমান আন্দোলনে পূর্ণ সংহতি প্রকাশ করে অবিলম্বে ৩০০ টাকা মজুরির দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

সমাবেশের পূর্বে একটি লাল পতাকার বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুরানা পল্টন মোড়ে সমাবেশে মিলিত হয়।



সাতদিনের সেরা