kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৯ সফর ১৪৪৪

আ. লীগ নেতা টিপু হত্যার অস্ত্র উদ্ধার, পাঁচ আসামি রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ আগস্ট, ২০২২ ১৮:২২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আ. লীগ নেতা টিপু হত্যার অস্ত্র উদ্ধার, পাঁচ আসামি রিমান্ডে

আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু ও সামিয়া আফরান প্রীতি

রাজধানীর শাহজাহানপুরে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু ও সামিয়া আফরান প্রীতিকে গুলি করে হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় খিলগাঁও থানায় করা অস্ত্র মামলায় পাঁচ জনের তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম মঈনুল ইসলামের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ মামলার আসামিরা হলেন শামীম হোসাইন ওরফে মোল্লা শামীম (৩৫), তৌফিক হাসান ওরফে বাবু (৩৪), সুমন হোসেন (৩৫), এহতোশাম উদ্দিন চৌধুরী অপু (৩৭) ও শরিফুল ইসলাম হৃদয় (২৭)।

বিজ্ঞাপন

 

আজ তাদের আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর খিলগাঁও থানার অস্ত্র আইনের মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাদের সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মজিবুর রহমান।

রিমান্ড আবেদনে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উল্লেখ করেন, 'আসামিদের কাছ থেকে পাওয়া অস্ত্র রাজধানীর শাহজাহানপুরের টিপু হত্যা মামলায় ব্যবহার করা হয়েছে। অবৈধ এই অস্ত্র ব্যবহার করে আসামিরা এলাকায় চাঁদাবাজিসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম করতেন বলে প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া যায়। তাই মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য আসামিদের সাতদিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। ' শুনানি শেষে আদালত তাদের প্রত্যেকের তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ১৫ আগস্ট মোল্লা শামীম বেনাপোল হয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যে দক্ষিণ গোড়ান থেকে শরিফুল ইসলাম ওরফে হৃদয়কে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ২টি বিদেশি পিস্তল, ৮রাউন্ড গুলি ও ৩টি ম্যাগাজিনসহ গ্রেপ্তার করা হয়। বাবুর তথ্যে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি দক্ষিণ গোড়ান হতে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় রাজধানীর খিলগাঁও থানায় অস্ত্র আইনে একটি মামলা করেন ডিবি পুলিশের পরিদর্শক ইয়াসিন শিকদার।

গত ২৪ মার্চ রাত সোয়া ১০টার দিকে রাজধানীর শাহজাহানপুরে ইসলামী ব্যাংকের পাশে বাটার শো-রুমের সামনে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপুকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ সময় গাড়ির পাশে রিকশায় থাকা সামিয়া আফরান প্রীতি (১৯) নামে এক কলেজছাত্রীও নিহত হন। হত্যাকাণ্ডের পর ওইদিন রাতেই শাহজাহানপুর থানায় নিহত টিপুর স্ত্রী ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত কাউন্সিলর ফারহানা ইসলাম ডলি বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। এতে অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়।

মামলার এজাহারে টিপুর স্ত্রী অভিযোগ করেন, '২৪ মার্চ রাত সোয়া ১০টার দিকে শাহজাহানপুর থানার ২০২ উত্তর শাহজাহানপুর মানামা ভবনের বাটার শো-রুমের সামনে পৌঁছামাত্র অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা হামলা করেন। তারা আমার স্বামী জাহিদুল ইসলাম টিপুকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি গুলি করেন। '



সাতদিনের সেরা