kalerkantho

শনিবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ৯ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৭ সফর ১৪৪৪

উত্তরায় গার্ডার ধস : ক্রেনচালক ও বিআরটির বিরুদ্ধে মামলা

অনলাইন ডেস্ক   

১৬ আগস্ট, ২০২২ ১০:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উত্তরায় গার্ডার ধস : ক্রেনচালক ও বিআরটির বিরুদ্ধে মামলা

রাজধানীর উত্তরার জসীমউদ্দীন সড়কে নির্মাণাধীন বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার একটি চলন্ত প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে পাঁচজন নিহত হয়েছে। গতকাল বিকেলে এ দুর্ঘটনার পর ক্রেন দিয়ে গার্ডারটি সরিয়ে নেওয়া হয়। ছবি : লুৎফর রহমান

রাজধানীর উত্তরা এলাকায় নির্মাণাধীন বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের ক্রেন থেকে গার্ডার পড়ে প্রাইভেট কারের পাঁচ যাত্রী নিহতের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় ক্রেন পরিচালনাকারী চালক, প্রকল্পের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে দায়িত্বপ্রাপ্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) দিনগত রাতে নিহত ফাহিমা আক্তার ও ঝরনা আক্তারের ভাই মো. আফরান মণ্ডল বাবু বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় এ মামলা করেন। উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মোহসীন বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন

গতকাল সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকেল ৪টা ২০ মিনিটে উত্তরার জসীমউদ্দীন এলাকায় আড়ংয়ের সামনে ক্রেন দুর্ঘটনা ঘটে। ভারী গার্ডারের নিচে প্রাইভেট কারটি চাপা পড়ায় শুরুতে মরদেহ বের করা সম্ভব হয়নি। দুর্ঘটনার প্রায় তিন ঘণ্টা পর সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে এক্সকাভেটর দিয়ে গাড়িটির ওপর থেকে গার্ডারটি সরিয়ে প্রাইভেট কারের ভেতর থেকে পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত পাঁচজন হলো মো. রুবেল (৬০), ফাহিমা আক্তার (৪০), ঝরনা আক্তার (২৮), ঝরনার দুই সন্তান জান্নাত (৬) ও জাকারিয়া (২)।

পুলিশ বলছে, দুর্ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনায় আহত হন দুজন। আহত দুজন হলেন মো. হৃদয় (২৬) এবং তাঁর স্ত্রী রিয়া মণি (২১)। তাঁদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাঁদের গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। হতাহত সবাই একই পরিবারের সদস্য।   

পুলিশ ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকায় একটি বউভাতের অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হয় হতাহত ব্যক্তিরা। দুর্ঘটনার পরপরই দুজনকে আহত অবস্থায় প্রাইভেট কার থেকে বের করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। তখন গার্ডারের নিচে চাপা পড়া গাড়িটির ভেতরে পাঁচজন ছিল। তাদের দু-তিনজনকে বাইরে থেকে দেখা যাচ্ছিল।

লাশ উদ্ধারের পর গত রাত পৌনে ৮টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক সাইফুজ্জামান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন পুরুষ, দুজন নারী ও দুটি শিশু রয়েছে। তাদের সবার লাশ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এ ঘটনায় আমরা এখন পর্যন্ত পাঁচজনের মরদেহ ফায়ার সার্ভিসের কাছ থেকে বুঝে পেয়েছি। আহত দুজনকে উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ক্রেনের চালককে খুঁজছি। তাঁকে আটকের পরই সব প্রশ্নের জট খুলবে। ’



সাতদিনের সেরা