kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সাবেক ডিআইজি মিজানের মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ জুলাই, ২০২২ ১৬:৫৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাবেক ডিআইজি মিজানের মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ

ঘুষের মামলায় দণ্ডিত পুলিশের বরখাস্ত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানকে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলায় জামিন দেননি হাইকোর্ট। তবে মামলাটির বিচারকাজ ছয় মাসের মধ্যে শেষ করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ সোমবার বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান ও বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ারের হাইকোর্ট বেঞ্চ ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতকে এ নির্দেশ দিয়েছেন। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মাহবুব শফিক।

বিজ্ঞাপন

দুর্নীতি দমন কমিশন -দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

আইনজীবী মাহবুব শফিক কালের কণ্ঠকে বলেন, গত এপ্রিলে এ মামলায় জামিন চেয়ে আবেদন করা হয়েছিল। তখন ওই আবেদনে বিরোধিতা করে শুনানিতে দুদক বলেছিল সাক্ষ্য গ্রহণ পর্যাায়ে থাকা মামলাটির বিচারকাজ তিন মাসের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। ২৬ এপ্রিল আদারত আবেদনটি খারিজ করে দিয়েছিলেন। কিন্তু মামলাটির বিচারকাজ শেষ না হওয়ায় গত সপ্তাহে আবার আবেদন করা হয়। আদালত জামিন না দিয়ে মামলাটির বিচারকাজ ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন। ”

৩ কোটি ২৮ লাখ ৬৮ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও ৩ কোটি ৭ লাখ ৫ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে গত বছর ২৪ জুন মিজানসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেদুর্নীতি দমন কমিশন- দুদক।

মামলায় ডিআইজি মিজান ছাড়া আসামি করা হয়- তার স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রত্না ওরফে রত্না রহমান, ছোট ভাই মাহবুবুর রহমান ও ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানকে। মাহমুদুল রাজধানীর কোতোয়ালি থানায় উপ পরিরদর্শক (এসআই) ছিলেন।

২০২০ সালের ২০ অক্টোবর ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক আসিফুজ্জামান এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, আসামি মিজানুর রহমান তার ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানের নামে ২৪ লাখ ২১ হাজার ২২৫ টাকায় শুলশান-১ এর পুলিশ প্লাজা কনকর্ডে ২১১ বর্গফুট আয়তনের একটি দোকান বরাদ্দ নেয়। মিজানুর রহমান নিজে নমিনি হয়ে ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানের নামে ২০১৩ সালের ২৫ নভেম্বর একটি ব্যাংকে এফডিআর অ্যাকাউন্ট করে ৩০ লাখ টাকা জমা করেন। তবে দুদক অনুসন্ধান শুরু করলে সে টাকা ভাঙিয়ে সুদে আসলে ৩৮ লাখ ৮৮ হাজার ৫৭ টাকা তুলে ফেলেন।

অভিযোগে আরো বলা হয়, মিজানুর রহমান তার স্ত্রী রত্না ২০১১ সালে কাকরাইলে ১৭৭৬ বর্গফুটের একটি বাণিজ্যিক ফ্ল্যাট কিনে চুক্তিনামা করে বিভিন্ন সময় ১ কোটি ৭৭ লাখ ৯৬ হাজার ৩৫০ টাকা নির্মাণ কোম্পানিকে পরিশোধ করেন। পরে ২০১৬ সালে ফ্ল্যাটটি ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানের নামে দলিল রেজিস্ট্রি করেন।

এ মামলায় মিজান গত বছরের ১ জুলাই হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করলে তা নাকচ হয় এবং হাইকোর্ট তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন। এরপর ৪ জুলাই তার ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানকেও জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এক নারীকে জোর করে বিয়ের পর নির্যাতন চালানোর অভিযোগ ওঠায় ২০১৯ সালে  জানুয়ারিতে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনারের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় মিজানুর রহমানকে। তার বৈধ সম্পদের অনুসন্ধান চলার মধ্যেই দুদক পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকে ঘুষ দেওয়ার অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই আরেকটি মামলা হয়। চলতি বছর ২৩ ফেব্রুয়ারি এ মামলা রায়ে ডিআইজ মিজানকে ৩ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট আপিল করার পর গত ১৩ এপ্রিল দুই মাসের জামিন পান তিনি। পরে জামিনের মেয়াদ বাড়ানো হয়।  



সাতদিনের সেরা