kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

স্বাধীনভাবে ধর্ম পালনে রাষ্ট্র কাউকে বাধা দেবে না : মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক   

১ জুলাই, ২০২২ ২১:১৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্বাধীনভাবে ধর্ম পালনে রাষ্ট্র কাউকে বাধা দেবে না : মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের জন্য শুধু পদ্মা সেতু নির্মাণই নয়, তিনি ১০ টাকা মূল্যে ভিজিএফের চাল, কর্ণফুলী টানেল নির্মাণসহ অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বলতেন-আমার ধর্ম আমার, তোমার ধর্ম তোমার। অর্থাৎ যার যার ধর্ম সে স্বাধীনভাবে পালন করবে। রাষ্ট্র তাতে কোনো প্রকার বাধা দেবে না।

বিজ্ঞাপন

প্রত্যেক নাগরিক সমান অধিকার ভোগ করবে। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রীও বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার।

আজ শুক্রবার গাজীপুর প্রেস ক্লাবের সামনে শ্রীশ্রী মানিক্য মাধবের রথযাত্রা ও রথমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর জন্য উপস্থিত পুণ্যার্থীসহ সবার কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়েছেন।

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আজমত উল্লাহ খান, গাজীপুর সিটি মেয়র (ভারপ্রাপ্ত মেয়র) আসাদুর রহমান কিরণ, পুলিশ সুপার এস এম সফিউল্লাহ, গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার মো. জাকির হাসান, মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য আব্দুল হাদী শামীম, ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাসান আজমল ভুঁইয়া ও মনীন্দ্র চন্দ্র মণ্ডল। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন গাজীপুর রথমেলা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব মুকুল কুমার মল্লিক।

মন্ত্রী বলেন, বেদখল হওয়া দেবোত্তর সম্পত্তি উদ্ধার করে তাতে রথমেলা ও রথযাত্রার জন্য জমির পরিসর বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। গাজীপুর শহরে ভাওয়াল কোর্ট অব অ্যাওয়ার্ডসের যে জায়গা রয়েছে, তা পরিকল্পিতভাবে ব্যবহারের জন্য জেলা প্রশাসক ও সিটি মেয়রকে নির্দেশনা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের সিটিকে বাঁচাতে হবে। এখানে শিশু পার্ক, জিমনেশিয়াম ও সুইমিংপুল নেই, জেলা প্রশাসকের কার্যালয় নির্মাণের জন্যও জমি প্রয়োজন।

মন্ত্রী গাজীপুর সিটির সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য ভাওয়াল কোর্ট অব অ্যাওয়ার্ডসের জমির দখলদারদের পুনর্বাসনের জন্য ন্যূনতম জমি বরাদ্দ দিয়ে অবশিষ্ট জমিতে পরিকল্পিতভাবে প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নির্মাণ করার জন্য জেলা প্রশাসক ও সিটি মেয়রকে নির্দেশ দেন।

রথযাত্রা উপলক্ষে আয়োজিত সংক্ষিপ্ত আলোচনাসভা শেষে প্রধান অতিথি পুণ্যার্থীদের নিয়ে রথ টেনে রথযাত্রা ও রথমেলার উদ্বোধন করেন। এর আগে পালকি সহযোগে দেবতা মাণিক্য মাধবকে রথে অধিষ্ঠান করানো হয়। রথ টানের মধ্য দিয়ে মাণিক্য মাধব নিজ বাড়ি থেকে শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছেন। আগামী ৯ জুলাই, শনিবার উল্টো রথযাত্রায় মাণিক্যমাধবের নিজ বাড়ি ফেরার মধ্য দিয়ে এবারের ৯ দিনব্যাপী রথযাত্রার শেষ হবে।

সূত্র : বাসস।



সাতদিনের সেরা