kalerkantho

সোমবার । ৮ আগস্ট ২০২২ । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯ । ৯ মহররম ১৪৪৪

বিদেশ থেকে নব্য জেএমবি সংগঠিত করার চেষ্টা

এস এম আজাদ    

১ জুলাই, ২০২২ ১০:০৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিদেশ থেকে নব্য জেএমবি সংগঠিত করার চেষ্টা

হলি আর্টিজানে হামলার পরও কয়েক দফায় নাশকতার পরিকল্পনা করে ব্যর্থ হয়েছে জঙ্গি সংগঠন নব্য জেএমবি। ধারাবাহিক অভিযানে শীর্ষ নেতারা নিহত হওয়ার পর মাহাদী হাসান জন ওরফে আবুল আব্বাস আল বাঙালি নামের একজন এখন সংগঠনটির আমির। আবু আহসান হাবিব ওরফে লায়নকে নায়েবে আমির ঘোষণা করা হয়েছে। তুরস্ক, সিরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে অবস্থান করে ছদ্মনামে বিশেষ অ্যাপে যোগাযোগ করে সংগঠনকে সক্রিয় করতে চাইছেন তাঁরা।

বিজ্ঞাপন

তবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর হাতে দেশে ধরা পড়ছে তাঁদের অনুসারীরা। এসব তথ্য জানিয়েছেন জঙ্গি প্রতিরোধ কর্মকাণ্ডে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাঁরা বলছেন, নাশকতার পরিকল্পনা বা কর্মকাণ্ডে এখন নব্য জেএমবির শারীরিক সক্রিয়তা নেই। অনলাইনে যোগাযোগে সদস্য সংগ্রহের চেষ্টা আছে। তবে নজরদারি ও সচেতনতা বাড়ায় নতুন সদস্যও পাচ্ছে না এই জঙ্গি সংগঠনটি।

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে নব্য জেএমবির হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা, ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২২ জন নিহত হন। বিশ্বব্যাপী আলোচিত সেই ঘটনার ছয় বছর পূর্ণ হচ্ছে আজ শুক্রবার। হলি আর্টিজান হামলায় আলোচনায় আসা জঙ্গি সংগঠনটি বর্তমানে ‘অস্তিত্ব সংকটে’ আছে বলে দাবি করছেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের কর্মকর্তারা। তবে সংগঠিত হওয়ার চেষ্টার তথ্য থাকায় কঠোর নজরদারি অব্যাহত আছে।

সিটিটিসি কর্মকর্তারা বলছেন, ধারাবাহিক অভিযানে হলি আর্টিজান হামলায় জড়িতসহ ৬৩ জঙ্গি নিহত হয়েছে। গত ছয় বছরে সিটিটিসি গ্রেপ্তার করেছে ৫৫৯ জঙ্গিকে। বিদেশে থেকে অনলাইনে যোগাযোগের কর্মকাণ্ডও প্রতিহত করা হচ্ছে। এখন জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে সচেতনতার পাশাপাশি পুনর্বাসনে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। শিগগির কারাবন্দি জঙ্গিদের জন্য ডি-রেডিক্যালাইজেশন কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। এর মাধ্যমে কারাবন্দি জঙ্গিরা মুক্ত হয়ে জঙ্গিবাদে ফিরে না গিয়ে স্বাভাবিক জীবনে থাকবে।

সিটিটিসির প্রধান অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘হলি আর্টিজান হামলার পর থেকে ধারাবাহিক অভিযানে নব্য জেএমবি এখন অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে। অনলাইনে সাইবার অ্যাকটিভিটি আছে। তবে তাদেরও আমরা ধরে ফেলছি। যারা ট্রেনিং মডিউল শেয়ার করে তাদের অবস্থান আমরা বের করে ফেলছি। উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে, তারা আগে যেভাবে তরুণদের ভুল বুঝিয়ে জঙ্গিবাদের দিকে নিয়ে যেতে পেরেছে, এখন তেমন পারে না। বর্তমান প্রজন্ম সচেতন হয়েছে। বুঝতে পেরেছে। ’ পুলিশকে টার্গেট করে বোমা রাখার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘এমন একটি তৎপরতা ছিল যে আমাদের কাছাকাছি কোথাও আইইডি রেখে যাওয়া। গত বছর নারায়ণগঞ্জের ঘটনার পর যারা মূল ছিল তাদের সবাইকে ধরা হয়েছে। সব ঘটনায় জড়িতরা সিটিটিসির হাতে ধরা পড়েছে। ’ তিনি বলেন, ‘গত দুই বছরে জঙ্গিদের সক্ষমতার ঘটনা নেই। এ কারণে জিআইটি ইনডেক্সে (গ্লোবাল টরোরিজম ইনডেক্স) বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার নিরাপদ দেশের মধ্যে শীর্ষে অবস্থান করছে। আমরা ৪০ নম্বরে আছি। ’

আসাদুজ্জামান বলেন, জঙ্গিবিরোধী অভিযানের পাশাপাশি কারাগারে ডি-রেডিক্যালাইজেশন প্রগ্রাম চালু হচ্ছে। এখন কাউন্সিলর, ইসলামী চিন্তাবিদ, মনোবিদ, সমাজকর্মী ও শিক্ষাবিদ নিয়োগের কাজ চলছে। এই কর্মসূচিতে বন্দিদের সচেতন করে স্বাভাবিক জীবনে ফেরত পাঠানো হবে, যেন তারা আর জঙ্গিবাদের পথে পা না বাড়ায়। এরই মধ্যে ৪৮ জেলায় সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ডে বিভিন্ন পেশাজীবীকে নিয়ে কর্মসূচি হয়েছে বলেও জানান সিটিটিসিপ্রধান।



সাতদিনের সেরা