kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে রাজাকার-অমুক্তিযোদ্ধাদের নাম বাতিলের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ জুন, ২০২২ ২১:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে রাজাকার-অমুক্তিযোদ্ধাদের নাম বাতিলের দাবি

বীর মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে রাজাকার এবং অমুক্তিযোদ্ধাদের নাম বাতিল করে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ অর্জনকে কলঙ্কমুক্ত করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধারা ভাতার জন্য যুদ্ধ করেনি। দেশ স্বাধীন করতে যুদ্ধ করেছে। আমরা কখনো ভাবিওনি যে ভাতা দেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

এখন যখন ভাতা দেওয়া হচ্ছে তখন সামান্য নামের ভুলসহ বিভিন্ন সমস্যা দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের হয়রানি করা হচ্ছে। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) একবার রাজাকারের নামের তালিকা করলে সেটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাতিল করেছেন। এখন আবার নাকি তাদের দায়িত্ব দেওয়া হবে। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলকে (জামুকা) রাজাকারের তালিকার নামে এবার আর ব্যবসা করতে দেওয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন অমুক্তিযোদ্ধা প্রতিরোধ আন্দোলন নামের সংগঠন।

আজ শুক্রবার রাজধানী শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলকে (জামুকা) রাজাকারের তালিকা প্রণয়নের দায়িত্ব দেওয়ার প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন।

মানববন্ধনে অর্ধশতাধিক মুক্তিযোদ্ধার উপস্থিতিতে সংগঠনের সভাপতি জহির উদ্দিন জালাল (বিচ্ছু জালাল) বলেন, ‘জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা), মুক্তিযোদ্ধা আধিদপ্তর এরা কারা? আমরা যুদ্ধ করেছি প্রতিরক্ষা মন্ত্রাণলয়ের অধীনে। আজকে জামুকার যারা মুক্তিযুদ্ধ দেখে নাই, মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে ধারণা নাই, তাদের একেকজন পিয়ন থেকে পরিচালক পর্যন্ত, এদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের কোনো চেতনা নাই। এরা মুক্তিযোদ্ধাদের হয়রানি করার জন্য নাম থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ভুল ধরে। সেটি ঠিক করতে গেলে আবার অনেক টাকা খরচ করা লাগছে। ভাতা বন্ধ করে দিচ্ছে। একজন অভিযোগ দিচ্ছে অথচ যে অভিযোগ দিয়েছে তাকে সামনে আনে না। ’

তিনি আরো বলেন, ‘জামুকা বলে আপনার বিরুদ্ধে আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে। আপনি তিনজন (তারা ঠিক করে দেয়) মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে হাজির হন। নিয়ে গেলে তারা তাদের হয়রানি করে। আবার তাদের পছন্দের কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে নিজেদের পছন্দমতো তিনজন মুক্তিযোদ্ধার নাম দিয়ে তাদের হাজির করতে বলে। এভাবে তারা টাকা দিয়ে লোক হাজির করে ভাতা চালু করে দিচ্ছে। এটা কেমন বিচার?’

অমুক্তিযোদ্ধা প্রতিরোধ আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অভিনেতা আহসানুল হক মিনু বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা এখনো অর্ধেকও করতে পারেনি জামুকা। এই জামুকা রাজাকারের তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম দিয়েছিল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেটি বাদ দেন। আমরা জানতে পেরেছি, আবারও জামুকাকে রাজাকারের তালিকা করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হবে। তাই আমরা রাস্তায় নেমেছি। যাতে এটি করা না হয়। যাতে তারা রাজাকারের তালিকার নামে টাকার ধান্দা না করতে পারে সে জন্য সকল মুক্তিযোদ্ধাকে সজাগ থাকতে হবে। ’

তিনি বলেন, ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধারা ভাতার জন্য যুদ্ধ করি নাই। যদি ভাতা না দেয়, কোনো আপত্তি নাই। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ করে যে দেশ স্বাধীন করেছি, যে দেশের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সম্মান পেয়েছি, সেই সম্মান কেড়ে নিতে যাচ্ছে একটি চক্র; যারা গায়েবি অভিযোগ এনে ভোগান্তি দিচ্ছে। নতুন করে রাজাকারের তালিকার নামে টাকা না দিলে মুক্তিযোদ্ধাদের রাজাকার বানানো চলবে না। প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয় ভুল সিদ্ধান্ত নেবেন না। ’

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন মজুমদার, বীরপ্রতীক বাহাউদ্দিন রেজা, জায়বুর আলম আব্দুল্লাহ, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা মো. রফিকুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা দেওয়ান কামাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তারসহ অর্ধশতাধিক মুক্তিযোদ্ধা অংশ নেন।



সাতদিনের সেরা