kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

সিইসি বললেন

ইভিএমে ত্রুটি পেলে মিলিয়ন ডলার পুরস্কার উদ্ভট বিষয়

বিশেষ প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০২২ ০২:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইভিএমে ত্রুটি পেলে মিলিয়ন ডলার পুরস্কার উদ্ভট বিষয়

কাজী হাবিবুল আউয়াল

ইভিএমে ত্রুটি ধরতে পারলে ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণার কথা অস্বীকার করলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি বললেন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) ত্রুটি ধরিয়ে দিতে পুরস্কারের ঘোষণা উদ্ভট বিষয়। এমন ঘোষণা তিনি দেননি। একই সঙ্গে কথা বলার ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনারদের সতর্ক অবস্থান নিতে এবং দায়িত্বশীল হতে পরামর্শ দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

গত শনিবার মাদারীপুরে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির একটি অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান বলেছিলেন, ‘আমাদের প্রধান নির্বাচন কমিনার ইভিএমে ত্রুটি ধরতে পারলে ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছেন। ’

বিষয়টি নিয়ে সিইসি গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন ভবনের নিজ দপ্তরের সামনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান, রাশেদা সুলতানা, মো. আলমগীর ও আনিছুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

সিইসি বলেন, ‘সিইসি ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছেন—এটা উদ্ভট কথা। এতে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে। সিইসি এ ধরনের উদ্ভট কথা বলতে পারেন না। তবে কিছুদিন আগে নিজেদের মধ্যে আলোচনায় ইভিএম সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কেউ না কেউ এ ধরনের কথা বলে থাকতে পারেন। এ ধরনের বক্তব্য শোনার পর ইন্টারনাল তদন্ত শুরু করলাম। কেউ তাঁর ভালোবাসার উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে পারেন। ইভিএম যাঁরা তৈরি করছেন তাঁদের মধ্যে কেউ বলেছেন। ওখান থেকে বিষয়টি এসেছে। ’

তিনি বলেন, ‘কিছুটা স্মৃতিভ্রম হয়ে এ নির্বাচন কমিশনার ১০ মিলিয়ন ডলারের কথা বলতে পারেন। এটা কমিশনের বক্তব্য নয়। কোনোভাবে কমিশনের কোনো কর্মচারীও এ কথা বলেননি। অন্য কমিশনার তো দূরের কথা। কমিশন এটা বলতে পারে না। আমরা মিডিয়ায় কথা বলতে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলি। কমিশনকে অপদস্ত করার জন্য, সিইসিকে অপদস্ত করার জন্য বলেননি। কথাটা আসলে কিছুটা স্মৃতিভ্রমভাবে হয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করি। ’

সিইসি আরো বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনারদের কথা বলার ক্ষেত্রে সতর্ক অবস্থান নেওয়া উচিত। দায়িত্বশীল হওয়া উচিত। এই বক্তব্যের মাধ্যমে ইসির অবস্থান অবনমিত হয়েছে। ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হবে এতে। ইসির প্রতি মানুষ আস্থা আনতে চায়। শুরুতেই যদি সে সম্ভাবনা বিনষ্ট হয়ে যায় তাহলে আগামী জনপ্রত্যাশিত নির্বাচন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। ’



সাতদিনের সেরা