kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ২৬ মে ২০২২ । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৪ শাওয়াল ১৪৪

নারায়ণগঞ্জ আ. লীগ ঢেলে সাজানো হবে

তৈমুর ফারুক তুষার   

১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ০৩:৩৬ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



নারায়ণগঞ্জ আ. লীগ ঢেলে সাজানো হবে

নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজানো হবে। এর অংশ হিসেবে দলের জেলা ও মহানগর কমিটি পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশনা দিয়েছেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

সদ্য শেষ হওয়া সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় ও নির্বাচনের পরদিন দলের সহযোগী সংগঠন কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ ও ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

এদের বিরুদ্ধে নির্বাচনে দলের মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে কাজ না করার অভিযোগ উঠেছে। দলের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় যুবলীগের কমিটি ভাঙা হয়নি বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

সংগঠন ঢেলে সাজানোর এ উদ্যোগের ফলে কোণঠাসা হতে পারেন মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর বিরোধী নেতারা। কালের কণ্ঠকে এমনটা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা। তাঁরা জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরই নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্ত অমান্যকারী ও ব্যক্তিবিশেষের প্রতি অনুগত নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর কেন্দ্রীয় কমিটি।

দলের একাধিক সূত্র কালের কণ্ঠকে জানায়, সিটি নির্বাচন পরিচালনায় সম্পৃক্ত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর কমিটির কোন নেতা নির্বাচনে কী ভূমিকা রেখেছেন, সে বিষয়ে তথ্য জোগাড় করেছেন। জেলা ও মহানগরের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন নেতার আচরণে ক্ষুব্ধও হয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। তাঁরা নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগে নতুন নেতৃত্ব তৈরির জন্য দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের আগামী সভায় প্রস্তাব তুলবেন।

জানতে চাইলে ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগও পুনর্গঠন করা হবে। আমরা এখানে নির্বাচনের কাজ করতে এসে অনেক অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি। এগুলো দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের আগামী সভায় উত্থাপন করা হবে। ’

মির্জা আজম বলেন, ‘এভাবে একটি সংগঠন চলতে পারে না। ২৫ বছর ধরে জেলা ও মহানগরে কোনো ওয়ার্ড বা ইউনিট কমিটি নেই। ’

নির্বাচনের সময় নারায়ণগঞ্জে ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে তৃণমূলকে ঢেলে সাজানো দরকার। কোনো ব্যক্তিবিশেষের দল না হয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রতি যাঁরা অনুগত তাঁদের দলের নেতৃত্বে আনা দরকার। ’

নারায়ণগঞ্জ মহানগর শ্রমিক লীগের কমিটি ভেঙে দিয়েছে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটি। আইভীর নির্বাচন পরিচালনায় যুক্ত কেন্দ্রীয় নেতাদের পরামর্শে এ কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। শ্রমিক লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে একটি বড় অংশ নৌকার প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেননি বলে কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা।

জানতে চাইলে শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কে এম আযম খসরু কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে জেলা কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। আমাদের মূল দল আওয়ামী লীগের নির্দেশে এ কমিটি বিলুপ্ত করেছি। ’ তিনি বলেন, সুবিধাজনক সময়ে সম্মেলনের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ মহানগর শ্রমিক লীগের কমিটি গঠন করা হবে।

গত রবিবার ভোটের রাতেই ভেঙে দেওয়া হয় নারায়ণগঞ্জ মহানগর ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ এবং তাদের অধীন সব থানা, ওয়ার্ড কমিটি।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা কালের কণ্ঠকে বলেন, নেতাকর্মীরা নৌকার প্রার্থীর পক্ষে মাঠে কাজ করেননি। নির্বাচনী কাজে গিয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা স্থানীয় নেতাদের কাছ থেকে সহযোগিতা পাননি। ভোটের দিন সকাল ১০টায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু নারায়ণগঞ্জে গিয়ে স্থানীয় নেতাদের পাননি। পরে তিনি ফোন করে মহানগরের সভাপতি জুয়েল হোসেনকে ডেকে আনেন।

জানতে চাইলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, নারায়ণগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতারা নির্বাচনে তাঁদের ভূমিকা পালন করেননি। সংগঠনের নেতাকর্মীদের দায়িত্ব হলো দলের শৃঙ্খলা রক্ষা করা। সেটা যদি কেউ না করে তবে তার দায় তাদের নিতে হবে।

কালের কণ্ঠকে আফজালুর রহমান বলেন, ‘২৭ ওয়ার্ডে আমরা নির্বাচন পরিচালনায় কেন্দ্রীয় টিম করেছিলাম। এই টিমের সঙ্গে প্রতিটি ওয়ার্ডে কিছু নেতাকর্মী কাজ করেছেন। যাঁরা কাজ করেছেন তাঁদের তথ্য আমাদের কাছে আছে। তাঁদের দিয়েই সংগঠনে নতুন রক্তপ্রবাহ বাড়াব। ’

নারায়ণগঞ্জে নতুন করে সংগঠন সাজাবে কৃষক লীগও। সংগঠনটির সভাপতি সমীর চন্দ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগে দুই মাস আগেই কৃষক লীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। আমরা কেন্দ্র থেকে ওয়ার্ডভিত্তিক নির্বাচনী কমিটি গঠনের মাধ্যমে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছি। শিগগিরই আমরা নারায়ণগঞ্জে কৃষক লীগের কমিটি পুনর্গঠন করব। ’

নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগরে নতুন কমিটি হবে মহিলা আওয়ামী লীগেরও। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম বলেন, ‘আমরা নারায়ণগঞ্জে ঘোষণা দিয়ে এসেছি, শিগগিরই নতুন কমিটি দেব। কভিড পরিস্থিতি একটু ভালো হলে আগামী মার্চের মধ্যে সম্মেলন করে নতুন নেতৃত্ব আনা হবে। ’

জেলা ও মহানগর কমিটি ভেঙে দেওয়ার সম্ভাবনা আছে কি না, জানতে চাইলে মাহমুদা বেগম বলেন, ‘নারীদের ঘর থেকে বের করে সংগঠন করা বেশ কঠিন। এ বিবেচনায় আমরা আপাতত কমিটি ভেঙে দিচ্ছি না। তবে শিগগিরই সম্মেলন হবে। ’

সিটি করপোরেশনের ভোটের আগে ভেঙে দেওয়া হয় মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি। এই কমিটির প্রধান নেতারা আইভীবিরোধী হিসেবে পরিচিত। যুবলীগের নেতারা নির্বাচনের শুরু থেকেই আইভীর পক্ষে মাঠে কাজ করায় তাঁদের কমিটি ভেঙে দেওয়া হচ্ছে না বলে কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন সংগঠনটির একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম কালের কণ্ঠকে বলেন, অনেক কারণ আছে বলেই এসব সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত এসেছে।



সাতদিনের সেরা