kalerkantho

বুধবার ।  ১৮ মে ২০২২ । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩  

সাদা দলের মানববন্ধন

অধ্যাপক তাজমেরির গ্রেপ্তারে শিক্ষক সমিতির নীরব ভূমিকায় ক্ষোভ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ১৭:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অধ্যাপক তাজমেরির গ্রেপ্তারে শিক্ষক সমিতির নীরব ভূমিকায় ক্ষোভ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সদস্য তাজমেরি এস ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি চেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিএনপি-জামায়াত শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল। একই সঙ্গে এই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নীরব ভূমিকায় ক্ষোভ জানান সাদা দলের শিক্ষকরা।

আজ সোমবার বেলা ১২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এই ক্ষোভ জানানো হয়।

মানববন্ধনে সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিনের সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন সাদা দলের যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক ছিদ্দিকুর রহমান খান, শিক্ষক সমিতির সাবেক সহসভাপতি অধ্যাপক আখতার হোসেন খান, রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ইমরান কাইয়ুম, প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইয়ারুল কবির, রোকেয়া হলের সাবেক প্রভোস্ট অধ্যাপক লায়লা নুর ইসলাম প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন

সাদা দলের সাবেক আহ্বায়ক অধ্যাপক এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম বলেন, 'দেশের গুণী মানুষদের কারান্তরীণ রাখার অর্থ হচ্ছে গণতন্ত্রকে চিরদিনের জন্য নির্বাসিত করা। জোর করে ক্ষমতা ধরে রাখতে গিয়ে সরকার বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। বিএনপির রাজনীতি তথা বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদী আদর্শে বিশ্বাস করাটাই যেন তাজমেরি ইসলামের অপরাধ। এ জন্যই তাঁকে বানোয়াট ও ভিত্তিহীন মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শাসকগোষ্ঠী দেশে এক অস্বস্তিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। তবে সেদিন বেশি দূরে নয় যেদিন এই সরকারকে জবাবদিহি করতে হবে। '

শিক্ষক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন আহমেদ বলেন, 'ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও দেশের সকল অনৈতিক কাজের বিরুদ্ধে সব সময় প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে শিক্ষক সমিতি। অথচ শুধু জাতীয়তাবাদী বিশ্বাসী হওয়ায় তাজমেরি ইসলামের মতো একজন সনামধন্য শিক্ষকের গ্রেপ্তারে তারা কোনো সাড়া শব্দ পর্যন্ত করেনি। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। হুঁশিয়ার করে দিচ্ছি আপনারা প্রতিবাদ না জানলে এদিন আপনাদের কাছেও ফিরে আসবে। '

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, 'অধ্যাপক তাজমেরি ইসলাম গ্রেপ্তারের পর আমি শিক্ষক সমিতিকে জানিয়েছি যাতে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো হয়। কিন্তু কোনো ধরনের সাড়া পাইনি। শিক্ষক সমিতির করণীয় ছিল অন্তত একটা বিবৃতি দেওয়া। সমিতির একজন কার্য নির্বাহী সদস্য হিসেবে আমি দুঃখ প্রকাশ করছি। একই সঙ্গে অধ্যাপক তাজমেরি ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি। '



সাতদিনের সেরা