kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বেগম রোকেয়া দিবসের আলোচনায় বক্তারা

নারী মুক্তির আন্দোলনে বেগম রোকেয়া এখনো প্রেরণার উৎস

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৮:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারী মুক্তির আন্দোলনে বেগম রোকেয়া এখনো প্রেরণার উৎস

সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের উদ্যোগে বেগম রোকেয়ার ১৪১তম জন্ম ও ৮৯তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনাসভায় বক্তারা বলেন, নারী মুক্তির আন্দোলনে বেগম রোকেয়া এখনো প্রেরণার উৎস হয়ে আছেন। তার আদর্শকে ধারণ করে শোষণমূলক ব্যক্তিমালিকানার সমাজ ও পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা পরিবর্তন এবং সমাজের সব বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই জোরদার করতে হবে। আজ শুক্রবার রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ সংগঠন কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন মহিলা ফোরাম ঢাকা নগরের সংগঠক শিক্ষক শিপ্রা মণ্ডল।  

কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রুখশানা আফরোজ আশার সঞ্চালনায় সভায় আলোচনা করেন বাসদ ঢাকা নগর শাখার সদস্যসচিব জুলফিকার আলী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল কাদেরী জয়, মহিলা ফোরাম ঢাকা নগরের সংগঠক মুক্তা বিশ্বাস, সুস্মিতা মরিয়ম।

বিজ্ঞাপন

সভায় বক্তারা বলেন, বেগম রোকেয়া ছিলেন নারীমুক্তি আন্দোলনের পথিকৃৎ। সমাজে নারীকে মানুষ হিসেবে দেখার দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলা, নারীর সামনে সব প্রতিবন্ধকতা দূর করার সাহস, যুক্তি ও আপন প্রত্যয় নির্মাণের লক্ষ্যে আজীবন তিনি সংগ্রাম করেছেন, লেখনী ধরেছেন, স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছেন, সংগঠন গড়ে তুলেছেন।

বক্তারা আরো বলেন, বর্তমান সময়ে সারা দেশে নারী-শিশু-ধর্ষণ-নির্যাতন-হত্যা এক ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। পাহাড়ে-সমতলে-ঘরে-পথে-স্কুলে-কারখানায় যেকোনো স্থানে, দিনে-রাতে, যেকোনো জায়গায় নারীরা নিপীড়নের শিকার হন। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও বাংলাদেশের আইনে নারীর সমানাধিকার নাই, সমকাজে সমমজুরি নাই। বাল্যবিয়ে করোনাকালীন সময়ে আরো ভয়াবহ রূপ লাভ করেছে। নারীরা একদিকে অর্থনৈতিক শোষণ ও আরেকদিকে ভোগবাদী পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার দ্বারা নির্যাতিত। এই অবস্থা পরিবর্তনে লড়াই জোরদার করতে হবে।



সাতদিনের সেরা