kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

দ্বিতীয় দফায় নথি প্রকাশ, প্যান্ডোরা পেপার্সে আট বাংলাদেশির নাম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ১২:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দ্বিতীয় দফায় নথি প্রকাশ, প্যান্ডোরা পেপার্সে আট বাংলাদেশির নাম

বিশ্বের ধনী ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের গোপন সম্পদ, আর্থিক লেনদেন, কর ফাঁকি ও অর্থপাচার নিয়ে দ্বিতীয় দফায় ফাঁস হওয়া প্যান্ডোরা পেপার্সে আট বাংলাদেশির নাম এসেছে। এরা সকলেই ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জে বিভিন্ন কম্পানির মালিক বলে জানা গেছে। সোমবার রাতে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের জোট ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টসের (আইসিআইজে) ফাঁস হওয়া নথিতে এসব বাংলাদেশির নাম পাওয়া যায়।  

এবার আইসিআইজের প্রকাশিত নথিতে ৭ লাখ ৪০ হাজার ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে এসেছে।

বিজ্ঞাপন

এ তালিকায় যেসব বাংলাদেশির নাম পাওয়া গেছে তারা বাংলাদেশ ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া ও আর্জেন্টিনাসহ বিভিন্ন দেশের ঠিকানা ব্যবহার করেছেন। তবে প্যান্ডোরা পেপার্সে নাম উঠে আসা সকলেই অবৈধভাবে সম্পদ অর্জন বা পাচার করেছেন এমন নয় বলেও জানিয়েছে আইসিআইজে।   

দ্বিতীয় দফায় ফাঁস হওয়া প্যান্ডোরা পেপার্সের নথিতে নিহাদ কবির নামে এক বাংলাদেশির নাম রয়েছে। রাজধানী ঢাকার ইন্দিরা রোডে তার বাড়ির ঠিকানা দেওয়া হয়েছে। তিনি মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্সের বর্তমান সভাপতি। ক্যাপিটাল ফেয়ার হোল্ডিংস লিমিটেড নামে ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডসে তার মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ২০০৮ সালের ৮ আগস্ট ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডে অফশোর কম্পানি হিসেবে এটি নিবন্ধিত হয়।

এই নথিতে ইসলাম মঞ্জুরুল নামের আরেক বাংলাদেশির নাম রয়েছে। ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডসে ওরিয়েন্টাল এগ্রিকালচারাল কেমিক্যাল কম্পানি নামে নিবন্ধিত একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক তিনি। তার বাসার ঠিকানা হিসেবে পাওয়া গেছে গুলশান। তার যুক্তরাজ্যের দ্বৈত নাগরিকত্ব রয়েছে।

অন্য বাংলাদেশি যাদের নাম নথিতে ফাঁস হয়েছে তারা হলেন সাইদুল হুদা চৌধুরী, আনিতা রানী ভৌমিক, সাকিনা মিরালি, মোহাম্মদ ভাই, ওয়াল্টার প্রাহমাদ ও ড্যানিয়াল আরনেস্টো আয়ুবতী। এর মধ্যে সাইদুল হুদা, সাকিনা ও মোহাম্মদ ভাইয়ের ঠিকানা দেয়া হয়েছে গুলশান। আনিতা রানীর ঠিকানা দেয়া ছিল চকবাজার।  

অন্যদিকে, ব্যবসায়ী সাইদুলের মালিকানাধীন অফশোর প্রতিষ্ঠানের নাম বিবেন ইন্টারন্যাশনাল, আনিতা ভৌমিকের ইন্টারপ্রাইজ হোল্ডিংস লিমিটেড, সাকিনার মুন রেকার সার্ভিস করপোরেশন, মোহাম্মদ ভাইয়ের ১৯৩৬ হোল্ডিংস লিমিটেড, ওয়াল্টার প্রাহমাদের স্লিন্ট লিংক ইন্টারপ্রাইজ ও ড্যানিয়ালের মালিকাধীন কুডেল লিমিটেড।

গত কয়েক মাস ধরে ১১৭ দেশের ছয় শতাধিক সাংবাদিকের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে প্রকাশ পেয়েছে প্যান্ডোরা পেপার্সের দ্বিতীয় দফার নথিগুলো। এই দফায় প্রকাশিত মোট নথির সংখ্যা এক কোটি ২০ লাখ। এর আগে অক্টোবরে প্রকাশিত প্যান্ডোরা পেপার্সের প্রথম দফার নথিতে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী আব্দুল আওয়াল মিন্টুসহ এক নেপালি ব্যবসায়ীর নাম ছিল।



সাতদিনের সেরা